সরকারকে বিভ্রান্ত করেছে চালকল মালিকরা

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেছেন, ‘চাল মিল মালিকরা মিথ্যা তথ্য দিয়ে সরকারকে বিভ্রান্ত করেছেন। চালের দাম বৃদ্ধিতে পাটের বস্তা ব্যবহারের কোনো প্রভাব নেই। তাই আগামী তিন মাস বিদেশ থেকে আমদানিকৃত চালে শুধু প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহার করা যাবে। তবে অভ্যন্তরীণ চালের ক্ষেত্রে অবশ্যই পাটের বস্তা ব্যবহার করতে হবে।’

চালের দাম কমাতে চাল সংরক্ষণ ও পরিবহনে প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের একদিন পর বুধবার এ কথা বললেন প্রতিমন্ত্রী। এ উপলক্ষে সচিবালয়ে নিজ দফতরে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।

মির্জা আজম বলেন, ‘অটো রাইস মিল মালিকদের প্লাস্টিক বস্তা তৈরির ফ্যাক্টরি রয়েছে। তারা অবৈধভাবে প্লাস্টিক বস্তা তৈরি করে। যা আমাদের পরিবেশ ও পাট শিল্পকে ধ্বংস করে। তবে ১৭টি পণ্যে পাট বস্তা ব্যবহারে বাধ্যবাধকতা আরোপ করায় অনেকগুলো কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। কারখানাগুলো আবার চালু করার জন্য মিল মালিকরা এ মিথ্যাচার করেছে।’

তিনি বলেন, ‘দেশের অভ্যন্তরীণ বাজারে যে ১৭টি পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন রয়েছে তা বলবত থাকবে। এক্ষেত্রে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

এরআগে গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক বৈঠকে মিল মালিক ও ব্যবসায়ীরা চাল সংরক্ষণ ও পরিবহনে বাধ্যতামূলকভাবে পাটের বস্তা ব্যবহারের কারণে চালের দাম বেড়ে যাচ্ছে বলে জানান। প্লাস্টিকের বস্তা অনেক সাশ্রয়ী উল্লেখ করে এটা ব্যবহার করলে চালের দাম কমবে বলেও তারা জানান।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ বলেছিলেন, ‘প্লাস্টিকের বস্তাসহ ব্যবসায়ীরা যে যেভাবে খুশি চাল পরিবহন করতে পারবেন।’

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »