শৈলকুপায় সাংবাদিককে ফাঁসাতে ক্লিনিক ব্যবসায়ীর মামলা

Feature Image

ঝিনাইদহঃ  ঝিনাইদহের শৈলকুপায় দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিনিধি ও শৈলকুপা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শিহাব মলি¬ক কে ফাঁসানোর জন্য তথ্য ও প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করেছে স্থানীয় এক ক্লিনিক ব্যবসায়ী। জরিপ বিশ্বাস ডিগ্রি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শাহিন আক্তারের দায়ের করা ১৮-০৯-২০১৭ তারিখের মামলায় আদালত ওসি শৈলকুপাকে তদন্তপূর্বক মামলার প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

 

বিবাদীর আইনজীবি জানান, সাইবার ক্রাইম সংক্রান্ত ট্রাইবুন্যালের (৫৭) ধারার মামলা স্থানীয়ভাবে রেকর্ড কিংবা তদন্তের বিধান নাই, এমনকি উক্ত ফেসবুক স্ট্যাটাসে মানহানিকর মিথ্যা তথ্য বা বানোয়াট শব্দও নাই। মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ১৫-০৯-২০১৭ তারিখে ঝযবযধন গধষষরশ নামের ফেসবুক আইডি থেকে ‘শামীম (প্রা:) হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক কমপে¬ক্স এর মালিক কে’ শিরোনামে একটি স্ট্যাটাস দেওয়া হয়।

 

দীর্ঘদিন মালিক গোপন রেখে ব্যবসা চালানোর জন্য উক্ত আইডি ব্যবহারকারী প্রাইভেট হাসপাতালটির প্রকৃত মালিক খোঁজার চেষ্টা এবং ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন অফিসে শামীম হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক কমপেপ্লক্স এর বৈধ হালনাগাদ কাগজপত্র নেই বলে উল্লেখ করেন। এর ফলে মামলার বাদী নিজে প্রতিষ্ঠানটির মালিক দাবি করে ২৫-০৩-২০১৭ তারিখে ইস্যু করা ১৩৭৫ নং লাইসেন্স এর কপি আদালতে জমা দিয়েছে। যার মেয়াদ ৩০-০৬-২০১৭ তারিখেই শেষ হয়েছে, নবায়নকৃত কপি নেই।

উক্ত ১৩৭৫ নং লাইসেন্স নম্বরটি সঠিক হলেও অন্য একটি ক্লিনিকের নামে ইস্যু রয়েছে। উল্লে¬খ্য ১৩৭৫ নম্বর লাইসেন্সটির বিপরিতে পূর্বেই মামলা রয়েছে যার নং- শৈল ঈজ ২৩৫/১৬ উক্ত মোকর্দ্দমাটি বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচারাধীন আছে। এছাড়াও মামলার বাদী আয়কর ফাঁকির অভিযোগে অভিযুক্ত মরফিন, প্যাথিডিন সংক্রান্ত লাইসেন্সধারী ব্যবসায়ী ও একজন কলেজ প্রভাষক। সে ৪২৬-১০৪-৬৬৮৯/২০০০-২০০১/৭৯৫, তাং-২৪/০১/২০০১ এবং ৪২৬-১০৯-১০৪১/২০০৮-২০০৯/৯২০, তাং- ২৫/১২/২০০৮ দুইটা ঞওঘ নম্বরের মালিক, যা সচেতন মহলে দারুনভাবে প্রশ্নবিদ্ধ। তার বিরুদ্ধে রয়েছে নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প জালিয়াতির মত ভয়াবহ অভিযোগ। সে ০৭-০৭-২০১১ তারিখে ঝ-৯৯২৬৫৩১ নং ১শ টাকা ও ট-৯৫৯৬৩৬১ নং ৫০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ব্যবহার করে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মূল্যবান কাগজপত্র তৈরি করে সরকারি দপ্তরে জমা দিয়েছে। এর মধ্যে নিউ মহিলা ও শিশু ক্লিনিক শৈলকুপা, নিউ লাঙ্গলবাঁধ (প্রা:) হাসপাতাল এবং আল্ট্রা ডায়াগনষ্টিক সেন্টার শৈলকুপা এর কাগজপত্র অন্যতম। এ ব্যাপারে শাহিন আক্তার বলেন, তার সম্মান ক্ষুন্ন করতেই পূরনো কাগজপত্রের রেফারেন্স টানা হচ্ছে, তিনি নিজেকে স্বচ্ছ ব্যবসায়ী হিসাবে দাবি করেন।

 

আরো খবর »