গোপালপুর-বনপাড়া সড়কে ট্রাক পুতে ১৬ ঘন্টা যান চলাচলা বন্ধ

Feature Image

উপজেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

লালপুর (নাটোর) থেকে মাজহারুল ইসলাম: নাটোরের লালপুরের গোপালপুর-বনপাড়া প্রধান সড়কের কয়েকটি স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে যান চলাচলের অনুপোযোগি হয়ে পড়েছে। সড়কের এহেন বেহালদশার কারনে সোমবার সন্ধার পর দুটি ট্রাক পুতে যাওয়ায় প্রায় ১৬ ঘন্টা ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিলো। ফলে উক্ত সড়কে চলাচলকারী শত শত যান বহন ওই সময়ে বিকল্প পথে অর্থাৎ কেশবপুর হয়ে ওয়ালিয়া গিয়ে প্রধান সড়কে উঠছে। পরে মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে ট্রাক দুটিকে উদ্ধার করা হলে ওই সড়কে যান চলাচল শুরু হয়।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে নয়টার সময় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় উক্ত সড়কের ভুইয়াপাড়া ব্রিজের কাছে মাল বোঝায় দুটি ট্রাক পাশাপাশি পুতে আছে। ফলে সড়কের মুখ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। স্থানীয়রা জানায়, একই স্থানে সোমবার বিকেলে একটি ট্রাক পুতে গিয়েছিল, কয়েক ঘন্টা চেষ্টা করে সেটি উদ্ধার করা হয়েছে। এর পরেই সন্ধায় অপর একটি এবং রাতে আরো একটি ট্রাক আগেরটার পাশে পুতে পুরো সড়ক দখল করে ফেলে। ফলে পাশে যায়গা না থাকায় যানবহন চলাচল করতে পারছে না। একটি ট্রাকের চালক আব্দুল আজিজ জানান, ‘একটি ট্রাক আগ থেকেই পুতে ছিলো, রাতে আমি তার পাশ দিয়ে পার হতে গেলে পিছনের চাকা পুতে গিয়ে আটকে যায়।  এত সড়কের মুখ বন্ধ হয়ে রাত থেকে যান চলাচল বন্ধ আছে। কতক্ষনে এটি উদ্ধার হবে এমন প্রশ্নে ওই চালক জানান, রাত থেকেই স্থানীয়দের সহায়তায় উদ্ধারের চেষ্টা চলছে, কিন্তু কাজের কাজ না হওয়ায় দুটি ট্রাকটর ও কপিকল ডাকা হয়েছে। পরে সেগুলোর সহায়তায় দুপুর ১২ টার দিকে ট্রাক দুটিকে উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা।

উক্ত সড়কে নিয়োমিত চলাচল কারী বাস চালক হাবিবুর রহমান জানান, উক্ত সড়কের গোপালপুর রেলগেট,ভুইয়াপাড়া, দিয়াড়পাড়া, ওয়ালিয়াসহ কয়েকটি স্থানে ছোট বড় অনেক গর্ত হয়ে আছে। এছাড়া ভুইয়াপাড়ায় খলিষাডাঙ্গা নদীর উপর নির্মিত নতুন ব্রিজটির সংযোগ সড়ক ভেঙ্গে যাওয়ায় যানবহন ব্রিজে উঠতে পারছেনা ফলে বেশিরভাগ যানবহন পুরাতন ঝুকিপুর্ণ ভাঙ্গা ব্রিজ দিয়ে চলাচল করছে।

এ বিষয়ে নাটোর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামানিক মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে জানান, প্রাথমিক ভাবে মেরামতের জন্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে তবে  উক্ত সড়কের ক্ষতিগ্রস্থ অংশ মেরামতের জন্য বরাদ্দ এসছে, আগামী অক্টোবরে টেন্ডার হবে এবং নভেম্বর মাসের দিকে কাজ শুরু হবে।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »