কালিয়াকৈরে পুলিশের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্টের আসামী ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

গাজীপুর থেকে আলমগীর হোসেন: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মাঝুখান গ্রামে সোমবার বিকেলে জমি জালিয়াতির অভিযোগে মুক্তি মাহমুদ নামের এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্টের তিন আসামী ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ওই তিন আসামীর কাছ থেকে পুলিশ কর্মকর্তা স্থানীয় ছাত্রলীগের কর্মী সোহাগের মধ্যস্ততায় এক লাখ টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী জানায়, মাঝুখান গ্রামের মোসলেম উদ্দিন মেম্বার, ইউনুছ আলী ও আব্দুল হালিম নামের তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে একটি জমির জাল দলিল বিষয়ক একটি আদালতের মামলার ওয়ারেন্ট ইস্যূ হয়। ওই ওয়ারেন্টে নিয়ে কালিয়াকৈর থানার এস আই মুক্তি মাহমুদ নামের এক পুলিশ কর্মকর্তা বিকেলে মাঝুখান বাজারে গিয়ে আসামী মোসলেম উদ্দিন নামের এক আসামীকে গ্রেফতার করেন। পরে মামলার আরো দুই আসামীকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানোর জন্য প্রস্তুুুতি নিলে ছাত্র লীগের কর্মী সোহাগ ও স্থানীয় ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেন এর মধ্যস্তা করে ইউনুছ আলী ও আব্দুল হালিম নামের দুই ব্যক্তিকে ডেকে নিয়ে আসেন। পরে  পুলিশ ও আসামী পক্ষের লোকজনের মধ্যস্ততায় এক লাখ টাকা রফাদফা করে আসামীদের ছেড়ে দিয়ে এসআই মুক্তি মাহমুদ চলে আসেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, এক লাখ টাকার বিনিময়ে ওয়ারেন্টের তিন আসামীকে পুলিশ ছেড়ে দিয়েছে। এরকম আইন হলে দেশ চলবে কিভাবে।

মৌচাক ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেন জানান, আমি তদবির করে মোসলেম উদ্দিনকে রেখে দেই। টাকা লেনদেনের ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা মুক্তি মাহমুদ জানান, মোসলেম উদ্দিন নামের এক ওয়ারেন্টের আসামী প্যারালাইসেস রোগি থাকার কারণে তাকে এলাকার মরুব্বিদের অনুরোধে রেখে আসতে হয়েছে। অন্য দুই আসামীদের খুঁজে পাওয়া যায়নি।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এরকম কোন ঘটনা ঘটে থাকলে তদন্ত সাপেক্ষে ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »