দৌলতপুরে দুই কাজীর কারাদণ্ড

Feature Image

কু্ষ্টিয়া:  কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সরকারী আইন অমান্য করে ভূয়া সনদে বাল্যবিবাহ ও মেয়ের সাক্ষর নকল করে তালাকনামা প্রদানের দায়ে দুই কাজীর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বুধবার বিকেলে দৌলতপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাদের দণ্ডাদেশ প্রদান করেন।

ভ্রাম্যমান আদালত সুত্রে জানা যায়, উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের মোছা: মুসলিমা খাতুনকে সরকারি আইন অমান্য করে ভূয়া জন্ম সনদ দ্বারা বাল্যবিবাহ রেজিস্টেশন করার অপরাধে বৈরাগীরচর গ্রামের কাজী মোঃ খলিলুর ররহমান (৪২)কে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

এবং সরকারি আইন অমান্য করে এক মেয়ের সাক্ষর নকল করে তালাকনামা প্রদান করার অপরাধে ফিলিপনগর গ্রামের কাজী ওলীউল্লাহ (৪৩) কে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

দৌলতপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান এই সকল কাজী দীর্ঘদিন যাবত ভূয়া জন্ম সনদ দ্বারা বাল্যবিবাহ প্রদান করে আসছিল এবং কোনো নিয়ম না মেনে বিবাহ রেজিস্ট্রেশন ও তালাকনামা প্রদান করেন। তিনি অারো জানান অনেক সময় ইউনিয়ন চেয়ারম্যানরা অভিযোগ করেন কাজীরা বাল্যবিবাহ প্রদান করার জন্য আলাদা রেজিস্ট্রার ব্যবহার করেন।

এদিকে গত আট মাসে দৌলতপুরে ৬৩ টি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা হয়, ৩০ টি মামলা করা হয়, ১২ জন বর, বরের পিতা, কন্যার পিতা, মাওলানা ও কাজীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয় এবং ৬৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

তাছাড়া বাংলাদেশের প্রতিটা জেলা ও উপজেলার মধ্যে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলায় বাল্যবিবাহের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি এবং প্রতিমাসে প্রাই ১০ থেকে ১৫ টা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করেন দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তৌফিকুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি)মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহ্ দারা খাঁন পিপিএম সহ স্থানীয় সচেতন ব্যক্তিবর্গ।

আরো খবর »