মধুমতিতে রঙ ছড়ালো শত বছরের ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ

Feature Image

মহম্মদপুর (মাগুরা) থেকে মাহাবুব ইসলাম উজ্জ্বলঃ  মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার ঝামা বাজার সংলগ্ন মধুমতি নদীতে শতবছরের গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী বার্ষিক নৌকা বাইচ ও গ্রামীন মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার বিকালে স্থানীয়দের উদ্দ্যোগে মহম্মদপুরে এ বছর প্রথম নৌকা বাইচ ও গ্রামীন মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও খেলাধুলায় নদ-নদীর উপস্থিতি প্রবল এবং নৌকা বাইচ এ দেশের লোকালয় ও সংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ফসল। প্রতি বছর দূর্গা পূজার বিসর্জনের পরদিন এখানে বসে নৌকা বাইচ ও গ্রামীন মেলা।
চিত্তবিনোদনের আয়োজনে হাজার হাজার দর্শকের আনন্দ উচ্ছ¡াসিত গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী বার্ষিক নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় মোট ১০ নৌকার মধ্যে বড় খেল্লা নৌকা, ছিপা নৌকা, হরংগা নৌকাসহ ডুঙ্গা নৌকা অংশ নিয়েছে।

প্রায় নদী পাড়ের দুই কিলোমিটার বিশাল জায়গা জুড়ে দর্শকের হৈহুল্লো, আর কাশার ঘন্টার ঢং ঢং শব্দ ও নৌকা বাইচাদের ‘হেইয়্যা রে.. হেইয়্যা’ শব্দের সাথে নেচে ওঠে এ এলাকার নারী পুরুষ ছেলে বুড়ো কিংবা ছোট্ট শিশুর দল। নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা দেখতে দুপুরের পর থেকেই কিশোর কিশোরীসহ নানা বয়সয়ের মানুষ নদী পাড়ে ভীড় জমাতে থাকেন। প্রতিযোগিতা শুরুর আগ মূহূর্তে নদীর দু’পাড়ে নামে হাজার হাজার মানুষয়ের ঢল।

এ উপলক্ষে স্থানীয় ঝামা বাজারে বসে গ্রামীন মেলা। ধর্মীয় গন্ডি পেরিয়ে এ মেলা পায় সার্বজনীন অবয়ব। মাটির খেলনা, বাঁশ-বেতের তৈরী জিনিষ কাঠের তৈরী নানা সরঞ্জামের পাশাপাশি মাছ মাংসের পসরা নিয়ে বসে দোকানিরা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এবং মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য ড. শ্রী বীরেন শিকদার বলেন, শত বছরের ঐতিহ্যবাহী এ মেলা এলাকার সম্প্রতির মেলবন্ধন আরো বেগবান করবে। সরকার দেশী ঐতিহ্যবাহী খেলাগুলোকে পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে পনরুজ্জীবিত করছে। বাঙালীর ঐতিহ্যবাহী এ সকল উৎসব বেশি বেশি আয়োজনের মধ্য দিয়ে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য সংরক্ষণ করা হবে তিনি জানান।

 

আরো খবর »