কাশ্মীরে বিএসএফ ক্যাম্পে সংঘর্ষ চলছে, নিহত ২

Feature Image

ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু ও কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরের বিমানবন্দরের নিকটবর্তী বিএসএফের ক্যাম্পে হামলা চালিয়েছে বিদ্রোহীরা। এতে বিএসএফের এক কর্মকর্তাসহ চার সদস্য আহত হয়েছেন।
নিহত হয়েছে দুই হামলাকারী। এখনও ঘাঁটিতে গোলাগুলি চলছে।

মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে শ্রীনগর বিমানবন্দর ও বিমানবাহিনীর স্টেশনসংলগ্ন গোগো হুমহামা এলাকায় বিএসএফের ১৮২তম ব্যাটালিয়নের ক্যাম্পে এ হামলা চালানো হয়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, ভোর সাড়ে ৪টায় আগ্নেয়াস্ত্র হাতে তিন থেকে চারজন ফিদাঈ বিদ্রোহী হামলার চেষ্টা চালায়। এ সময় বিএসএফ জওয়ানরা বাধা দিলে তারা পিছু হটে। কিন্তু ১৫ মিনিট পর ভোর পৌনে ৫টার দিকে বিএসএফের ভবনের মধ্যে ঢুকে পড়েতে সমর্থ হয় হামলাকারীরা। এর পর এলোপাতাড়ি গুলি ও বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে ওঠে গোটা এলাকা।

খবর পেয়ে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। তারা গোটা এলাকা ঘিরে ফেলেন। সেখানে সিআরপিএফ, ৫৩তম রাষ্ট্রীয় রাইফেলস, বিএসএফ ও এসওজি বাহিনীর সদস্যরা রয়েছেন। সেনাবাহিনী হেলিকপ্টারে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে।

জানা গেছে, হামলার জেরে শ্রীনগর বিমানবন্দর বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বিমানবন্দরে যাওয়ার সব রাস্তা বন্ধ এবং ভোরের সব ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। কাশ্মীরে বিএসএফ ঘাঁটিতে হামলার ঘটনায় ভারতের সব বিমানবন্দরে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ভারতীয় সময় বেলা সাড়ে ১১টায় জরুরি বৈঠক ডেকেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। এদিকে সোমবার রাতে পদগাম্পুরায় জঙ্গিদের গুলিতে এক পুলিশকর্মী নিহত হয়েছেন। নিহতের নাম আশিক হোসেন। তিনি হেড কনস্টেবল ছিলেন। অবন্তিপুরা থানা থেকে বাড়ি ফেরার পথে তাকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার সঙ্গে বিএসএফের শিবিরের হামলাকারীদের কোনো যোগ রয়েছে কিনা তা জানা যায়নি।

উল্লেখ্য, ১৭ বছর আগে ২০০০ সালে শ্রীনগর বিমানবন্দরে হামলার চেষ্টা হয়েছিল। ওই সময় বিস্ফোরক বোঝাই গাড়ি নিয়ে বিমানবন্দরের ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে জৈশ-ই-মোহাম্মদ নামের সংগঠনের সদস্যরা।

আরো খবর »