লাস ভেগাস হামলাকারীর বান্ধবী কিছুই জানতেন না

Feature Image

যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা অঙ্গরাজ্যের লাস ভেগাসে বন্দুক দিয়ে হামলা চালিয়ে ৫৯ জনকে হত্যার আগেই বান্ধবী মারিলু ড্যানলিকে ফিলিপাইনে পাঠিয়ে দেয় হামলাকারী স্টিফেন প্যাডক। তবে তিনি মঙ্গলবার রাতে ফিলিপাইন থেকে এসে লস অ্যাঞ্জেলসের বিমানবন্দরে নামার পর যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

মার্কিন গণমাধ্যম জানিয়েছে, ইতিমধ্যেই এফবিআই কর্মকর্তারা মারিলুর সঙ্গে কথা বলেছে। তবে তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন, স্টিফেন প্যাডক এত বড় একটি ঘটনা ঘটাবে, এমন কিছুই তিনি বুঝতেই পারেননি।

তদন্তকারীদের তিনি জানিয়েছেন, তিনি ভয় পাচ্ছিলেন, সম্পর্ক থেকে বিচ্ছেদের জন্যিই তাকে ফিলিপাইনে পাঠান স্টিফেন। তবে তিনি (স্টিফেন) বেশ সজ্জন ব্যক্তি ছিল বলেই তিনি মনে করেন।

স্টিফেন প্যাডোক কোনো সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত কিনা তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায় নি, তবে লাস ভেগাসে সে যে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তার দায় স্বীকার করেছে আইএস। অবশ্য বিষয়টি এখনও মার্কিন গোয়েন্দারা স্বীকার করেনি।

আশা করা হচ্ছে, তার কাছ থেকে প্যাডকের ওই হত্যাকাণ্ড ঘটানোর কারণ বিষয়ে ধারণা পাওয়া যেতে পারে।

লাস ভেগাসে রবিবারের ওই হত্যাকাণ্ডের পর যুক্তরাষ্ট্রে আগ্নেয়াস্ত্র-বিষয়ক সাংবিধানিক ধারা নিয়ে বিতর্ক আগের চেয়ে আরো উসকে উঠেছে। এ বিষয়ে গত মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, দ্বিতীয় অধ্যাদেশ নিয়ে বিতর্কের ‘সময় হয়তো আসবে।
সময় হলে আমরা অস্ত্র আইন নিয়ে কথা বলব। ’ এর আগে সব সময় তিনি আগ্নেয়াস্ত্র আইন সংশোধনের বিপক্ষে নিজের অবস্থান জানান দিয়ে এসেছেন।

২৮ সেপ্টেম্বর ম্যান্ডাল বে হোটেলে ওঠেন প্যাডক। ওই সময় হোটেলের চেকিংয়ে মারিলুরর পরিচয়পত্রের কিছু নথিও তিনি ব্যবহার করেন বলে বলা হচ্ছে।

গুলির ঘটনার আগে প্যাডক ফিলিপিন্সের একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে এক লাখ ডলার পাঠিয়েছিলেন। ওই ডলার মারিলুকেই পাঠানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছিল।

স্টিভেন প্যাডকের ছোট ভাই এরিক প্যাডক নিউ ইয়র্ক টাইমকে জানিয়েছেন, তার ভাই মারিলুকে ভালোবাসতেন এবং তার জন্য পাগল ছিলেন। কিন্তু এই হামলার বিষয়ে বিন্দুমাত্র কোনো তথ্য জানতেন না প্যাডকের বান্ধবী ম্যারিলু ড্যানলি। বরং তিনি তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু প্যাডককে খুব যত্নবান ও শান্ত বলে উল্ল্যেখ করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসের কনসার্টে এক বন্দুকধারীর এলোপাতাড়ি গুলিতে ৫৯ জন নিহত এবং আরো প্রায় ৫২৭ জন আহত হয়। নেভাডার বাসিন্দা স্টিফেন প্যাডক নামের এক বন্দুকধারী পাশের ম্যান্ডেলা বে হোটেলের ৩২ তলা থেকে এলোপাথাড়ি গুলি ছুঁড়ে মার্কিন ইতিহাসের সবচেয়ে বড় এই হত্যাকাণ্ড ঘটায়।

আরো খবর »