চলে গেলেন ঈশ্বরদী উপজেলা বিএনপির প্রাক্তন সভাপতি তোরাব আলী

Feature Image

উপজেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঈশ্বরদী থেকে সেলিম আহমেদ : বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ঈশ্বরদী উপজেলা শাখার প্রাক্তন সভাপতি ও লক্ষিকুন্ডা ইউনিয়ন পরিষদের বার বার নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান প্রবিণ রাজনীতিবিদ মোঃ তোরাব আলী বিশ্বাস গতকাল বৃহস্প্রতিবার বিকেল ৩টা ২০ মিনিটের সময় নিজ বাসভবনে বাধ্যক জনিত কারণে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর, তিনি স্ত্রী ৩ ছেলে ৩ মেয়ে নাতি-নাতনি আত্মিয় স্বজন, বন্ধু-বান্ধব, গুনগাহি ও রাজনৈতিক শুভাকাঙ্খি রেখে গেছেন। ঈশ্বরদী উপজেলা ও পৌর বিএনপি গভির শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। আজ শুক্রবার সকাল দশটায় তার নিজ এলাকায় জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। মরহুম তোরাব আলী বিশ্বাসের জানাযা নামাজে দলমত নির্বিশেষে প্রচুর ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নেয়।

শহিদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নীতি ও আদর্শ এবং বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী দর্শণে বিশ্বাসী মরহুম তোরাব আলী বিশ্বাস ৮০ ও ৯০ দশকে ঈশ্বরদী উপজেলা বিএনপিকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালি করতে তার যে অগ্রণী ভূমিকা অপরিসীম। ঈশ্বরদীবাসী ও নেতাকর্মীরা কোন দিন তা ভুলবেনা, মরহুম তোরাব আলী বিশ্বাসের মৃত্যুতে ঈশ্বরদী উপজেলা বিএনপির প্রতিটা নেতা-কর্মী গভির শোক ও দুঃখও প্রকাশ করেছেন ।

বিএনপির এই ক্রান্তিকালে তারমত একজন অভিভাবকের বেঁচে থাকা অত্যন্ত জরুরি ছিল। ঈশ্বরদী উপজেলা বিএনপির পক্ষ থেকে মরহুম তোরাব আলী বিশ্বাসের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন এবং শোকাহত পরিবারের সদস্যবর্গ, আত্মীয়স্বজন, গুণগ্রাহী ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভির সমবেদনা জ্ঞাপন করছেন। বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়

জানাযা নামাজের আগে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন, কেন্দ্রিয় বিএনপির সদস্য সাবেক পৌর মেয়র মকলেছুর রহমান বাবলু, সাবেক এমপি আব্দুল বারী সরদার, উপজেলা বিএনপির সভাপতি শামসুদ্দিন আহমেদ মালিথা, অ্যাডভোকেট রবিউল আলম বুদু, শ্রমিক নেতা মোহাম্মদ রশিদুল্লাহ, পাবনা জেলা জামায়াতের আমির অধ্যাপক আবু তালেব মন্ডল, বিএনপি নেতা জার্জিস হোসেন, জিয়াউল ইসলাম সন্টু সরদার, আক্তারুজ্জামান আক্তার, সাহাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মতলেবুর রহমান মিনহাজ ও মরহুমের জৈষ্ঠ পুত্র জুয়েল বিশ্বাস।

ব্যক্তারা বলেন, বিএনপির প্রবিণ রাজনীতিবিদ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে স্বৈরাচার এরশাদ ও স্বৈরাচার হাসিনা বিরোধী আন্দোলনে সুসংগঠিত সাহসি ভূমিকা পালন করেছেন। সুসময় ও দুঃসময় উভয়কালেই তিনি দলের সাথে সম্পৃক্ত রেখেছিলেন। তার সুচিন্তিত পরামর্শ ছিল অতিব মূল্যবান। দেশের গতানুগতিক রাজনীতির বাহিরে একজন ব্যতিক্রমী রাজনৈতিক ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেছিলেন। ধৈর্য্য, বাকসংযম, স্পষ্টবাদিতা তার ছিল চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য। মরহুম তোরাব আলী বিশ্বাস সকল রাজনীতির বাইরে একজন ভালো মানুষ ছিলেন। এলাকার মানুষের দুঃখ দুর্দশায় তিনি পাশে দাঁড়াতেন। ঈশ্বরদীবাসি একজন ভালো মানুষকে হারালেন যা আর কখনোই পূরনীয় নয়।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »