কুষ্টিয়া – কুমারখালী রুটে সি,এন,জি চালকদের আচরণে অতিষ্ট যাত্রীরা।

Feature Image

কুষ্টিয়া থেকে কুমারখালী প্রতিনিয়ত এই রুটে কর্মজীবী মানুষ ছাড়াও বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা নিয়োমিত যাতায়াত করে। যাতায়াতের বিভিন্ন মাধ্যম থাকলেও মানুষ সি,এন,জি গাড়ীতেই যেতে একটু বেশী স্বাচ্ছন্দ বোধ করে।যেহেতু ছোট্ট একটি গাড়ি কম সময়ে গন্তব্যে পৌওছানো যায়। কিন্তু যাদের গাড়ীতেই যেতে মানুষের এতো আকাঙ্খা তাদের আচরণ ও ব্যবহারে অতিষ্ট যাত্রীরা।

এই রুটের অধিকাংশ যাত্রী যখন সি,এন,জি গাড়ীকে ভরসা করে চলাফেরা করে, আর সেই সুযোগের স্বদ্বব্যবহার করে কতিপয় চালকেরা। গুটি কয়েক চালক ব্যাতিত অধিকাংশ চালকেরই দূর ব্যবহারের এমন অভিযোগ প্রায়ই মেলে।

বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অযুহাতে ভাড়া বৃদ্ধি করায় বিপাকে পড়েছে এই রুটের চলাচলরত বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষাথিরা। কুমারখালী ও আলাউদ্দিন নগর সহ বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিনিয়ত স্কুল কলেজগামী শিক্ষাথী কর্মজীবী ও অসুস্থ রোগী এবং বিভিন্ন মানুষের প্রতিনিয়ত এই রুটে যাতায়াত করে। ফলে সি,এন,জি,মালিকের বিরুপ আচরণ সহ গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া।

মাঝে মধ্য দেখা যায় সি,এন,জি,চালকরা ব্যাটারি চালিত আটো রিক্সা ও বাস ড্রাইভার হেলপাদের সাথে বিভিন্ন কারণে বাকবিতন্দায় জড়িয়ে পরে । ফলে দীর্ঘ যানজটসহ জন সাধারণের ভোগান্তি বেড়ে যায়। সি,এন,জি চালক দের এমন আচরণ অব্যহত থাকলে মানুষ দিনে দিনে আস্থা হাড়িয়ে ফেলবে এমন ছোট্ট বাহনের উপর।

আরো খবর »