ক্ষমতাকেন্দ্রে উনের বোন

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং-উনের বোন কিম ইয়ো জং ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য মনোনিত হয়েছেন।

দেশটির শাসন ব্যবস্থার মূলনীতি নির্ধারণ ও পরিচালনা করে এই পলিটব্যুরো। এর সভাপতি বা প্রধান হলেন কিম জং-উন।

উনের খালা কিম কিয়াং হি-এর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন ২৮ বছর বয়সি কিম ইয়ো জং। কিম জং-ইলের শাসনমালে নীতি নির্ধারণে ব্যাপক ভূমিকা ছিল কিয়াং হির।

জন হফকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘নর্থ ৩৮’-এর ওয়েবসাইটে উত্তর কোরিয়া বিশেষজ্ঞ মাইকেল ম্যাডেন বলেছেন, ‘ এ থেকে বোঝা যায়, আগে যেমনটি ভাবা হচ্ছিল, তার চেয়েও বেশি ক্ষমতার মালিক তিনি। আর মধ্যে দিয়ে কিম পরিবারের ক্ষমতা আরো সুসংহত করা হলো।’

মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের জন্য জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় অন্যান্যের সঙ্গে কিম ইয়ো জংয়ের নামও কালোতালিকাভুক্ত করে।

উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কার্যক্রমে অবদান রাখা তিন ব্যক্তির মধ্যে দুজন- কিম জং-সিক ও রি পিয়ং চোলও পদোন্নতি পেয়েছেন। এ ছাড়া দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো এখন আরো বেশি ক্ষমতাধর ভূমিকায় অধিষ্ঠিত হয়েছেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সময় তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘প্রেসিডেন্ট শয়তান’ বলে সম্বোধন করেন। তিনি পলিটব্যুরোর ‘পূর্ণ ভোটিং সদস্য’ হয়েছেন।

উনের সন্তোষ: উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কার্যক্রম নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন কিম জং উন। তিনি দাবি করেছেন, তার পরমাণু অস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ‘শক্তিশালী প্রতিবন্ধকতা’ তৈরি করতে সক্ষম।

কিম বলেছেন, তাদের কাছে যে পরমাণু অস্ত্র আছে, তা উত্তর কোরিয়ার সার্বভৌমত্বের নিশ্চয়তা দেবে। দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর কয়েক ঘণ্টা আগে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক টুইটে বলেন, দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনা করে কোনো লাভ হয়নি। হবেও না। তার ভাষ্য, শুধু একটি বিষয়েই কাজ হবে। তবে কী সেই বিষয়, তা তিনি বলেননি।

ট্রাম্পের এ হুমকি উত্তর কোরিয়ায় হামলার ইঙ্গিত বহন করে। তথ্যসূত্র : রয়টার্স অনলাইন

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »