টানেল নির্মাণে অর্থছাড়ের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন

Feature Image

টানেল নির্মাণে অর্থছাড়ের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণে চীন থেকে অর্থ ছাড় নিয়ে কোনো জটিলতা নেই।

তিনি বলেন, বিদেশিরা তাদের প্রকল্পে যখন ঋণ দেয় তাদের অর্থছাড়ে কিছু প্রক্রিয়া থাকে।
কাজেই অর্থছাড়ের বিষয়টি তাদের প্রক্রিয়াগত ব্যাপার। এতে কোনো প্রক্রিয়াগত ও পদ্ধতিগত বাধা নেই।

সোমবার চট্টগ্রামের পতেঙ্গাতে কাজের অগ্রগতি দেখতে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, অর্থছাড়ের ব্যাপারে যে সমস্যা মনে করা হচ্ছে, এমন কোনো সমস্যা আমরা ফেইস করছি না। হলি আর্টিজানের পর থেকে আমাদের বিদেশি প্রজেক্ট কিছুটা স্লোহ হয়ে গিয়েছিল। সঙ্গত কারণে কনসালটেন্টরা তাদের জীবনের নিরাপত্তার কথা বলেছে। এখনও মেট্রো রেলের কাজও চলছে টানেলের কাজও চলছে। প্রায় সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এ টানেল নির্মাণের কাজ চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ে শুরু হয়েছে। এটি নির্মাণের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে চার বছর।

টানেল নির্মাণ কাজ শেষ হবে প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা সরকার উন্নয়নের মহাসড়কের যে পরিকল্পনা নিয়েছে- এটা ইলেকশনের জন্য নয়, এটা নেক্সট জেনারেশনের জন্য। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য আমরা উন্নয়ন করছি। নির্ধারিত সময়ের চেয়ে মাস ছয়েক দেরিতে টানেল নির্মাণ কাজ শেষ হতে পারে এমন বিষয় জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, আমরা এ টার্গেটটি কমিয়ে দিতে পারি। কিন্তু কাজটি খারাপ হবে। আমরা খারাপ কাজ, খারাপ দৃষ্টান্ত রেখে যেতে চাই না। বর্তমান সরকারের আমলে না হলেও টানেল নির্মাণ কাজটি ভালোভাবে সম্পন্ন হবে বলে আশা করছেন মন্ত্রী।

অপরদিকে বিকালে চট্টগ্রামের মুসলিম হলে আতাউর রহমান খান কায়সারের স্বরণ সভায় তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, চৌধুরী মহিবুল আলম নওফেল, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাসান মাহমুদ। উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে নগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে স্বরণ সভায় কায়সারের মেয়ে সংরক্ষিত আসনের এমপি ওয়াশিকা আয়শা খানসহ কেন্দ্রীয়, নগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর »