রাজনীতি যার যার, `বঙ্গবন্ধু’ সবার

Feature Image

বঙ্গবন্ধু শুধু একজন ব্যক্তি নন, তিনি বাঙালি জাতির জনক, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্বপ্নদ্রষ্টা, সফল রূপকার ও স্থপতি। বঙ্গবন্ধুকে কেন্দ্র করেই “জাতীয় ঐক্য” গড়ে তুলতে হবে। যেমন, ভারতের মহাত্মা গান্ধী, ব্রিটেনের রাণী এলিজাবেথ, যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন, চীনের মাও সে তুং, রাশিয়ার লেলিন এবং জাপানের রাজা আকিহিতো। এসব মহামনীষীরা তাঁদের স্ব-স্ব দেশের জাতীয় ঐক্যের প্রতীক এবং অভিভাবক। তাঁদেরকে কেন্দ্র করেই দেশগুলোয় জাতীয় ঐক্য সুদৃঢ় রয়েছে। বাংলাদেশেও বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতীয় ঐক্যের প্রতীক ঘোষণা ও স্বীকার করে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। যেভাবে ধর্ম যার যার, `রাষ্ট্র’ সবার! একইভাবে রাজনীতি যার যার, `বঙ্গবন্ধু’ সবার। এ ধরনের রাজনৈতিক চেতনায় বিশ্বসী বাংলাদেশ মানবতাবাদী দল (বিএইচপি)।

রাজনীতিতে মতপার্থক্য থাকবেই। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কিংবা অর্থনৈতিক উন্নয়নে সকলের থাকবে এক ও অভিন্ন মত। যেমন, ভারতে কংগ্রেস যেভাবে অর্থনৈতিক উন্নয়নের কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে চায়, বিজেপি সেভাবে চায় না। অর্থনৈতিক উন্নয়নে তাঁদের রাজনৈতিক মত-পার্থক্য আছে। কিন্তু তাঁদের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধী ও জাতীয় স্লোগান ‘বন্দে মাতরম’ কিংবা ‘জয় হিন্দ’ এর প্রশ্নে কোনো দ্বিমত নেই। ভারতে স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ দল বলতেও কিছু নেই। একইভাবে ব্রিটেনে ‘লেবার পার্টি অর্থনৈতিক উন্নয়ন যেভাবে করতে চায়, কনজার্ভেটিভ পার্টি সেভাবে চায় না। অনুরূপভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রিপাবলিকান পার্টি যেভাবে চায়, ডেমোক্রেটিক পার্টি সেভাবে চায় না। একইভাবে রাশিয়া, চীন, জাপান, জার্মানী, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ইটালিসহ পৃথিবীর উন্নত রাষ্ট্রগুলোর রাজনৈতিক সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে কেন্দ্র করেই। সেখানে হিংসা-প্রতিহিংসার কোনো স্থান নেই। আমাদের দেশেও তা থাকতে পারে না। সূত্র : বাংলাদেশ মানবতাবাদী দল (বিএইচপি)’র facebook পেজ

 

আরো খবর »