জিয়া, এরশাদ ও খালেদার আমলে বিচারপতিদের বিদায় করা হয়েছে

Feature Image

এইচ এম এরশাদ, জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার আমলে প্রধান বিচারপতিসহ সুপ্রিম কোর্টের অন্তত ১৯ জন বিচারপতিকে বিদায় করা হয়েছে।

অবসরের বয়সসীমা কমানোর মাধ্যমে প্রধান বিচারপতির পদ থেকে এরশাদের আমলে সরানো হয়েছিল বিচারপতি কামালউদ্দিন হোসেনকে।

১৯৮২ সালের ১১ এপ্রিল সামরিক ফরমানে পদ হারিয়ে এজলাস থেকেই তাকে চলে যেতে হয়। একজন প্রধান বিচারপতিকে এজলাসে বসেই সেদিন শুনতে হয়েছে ‘এই মুহূর্ত’ থেকে তার আর চাকরি নেই! বাংলাদেশের বিচার বিভাগের ইতিহাসে এমন ঘটনা নেই বললেই চলে। এর আগে জিয়ার শাসনামলে ১৯৭৭ সালে আপিল বিভাগের বিচারপতি দেবেশ ভট্টাচার্যকে সামরিক ফরমান বলে অবসরে পাঠানো হয়। চলে যেতে হয়েছিল বিচারপতি কে এম সোবহান ও বিচারপতি কাজী সফিউদ্দিন আহমেদকেও।

 

এ ছাড়া বিচারপতি আ স ম হোসাইন ও আবদুর রহমান চৌধুরীকেও এরশাদের শাসনামলে অপসারণ করা হয়। তারা দুজনেই ছিলেন হাই কোর্ট বিভাগের বিচারপতি। সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের সঙ্গে টেলিফোনে কথোপকথনের ঘটনায় ক্যাসেট কেলেঙ্কোরিতে ২০০০ সালের নভেম্বরে পদত্যাগ করেন হাই কোর্টের বিচারপতি লতিফুর রহমান।

 

এ ছাড়া আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে নিয়োগ পাওয়া হাই কোর্টের কয়েকজন বিচারপতিকে বিগত চারদলীয় জোট সরকার বাদ দেয়। সেই সময় বাদ পড়া বিচারপতিরা হলেন বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী, বিচারপতি নিজামুল হক, বিচারপতি আবদুস সালাম, বিচারপতি মোমতাজ উদ্দিন, বিচারপতি শামসুল হুদা, বিচারপতি ফারুক হোসেন, বিচারপতি আবদুল হাই, বিচারপতি আবদুর রাজ্জাক, বিচারপতি মারজুল হক, বিচারপতি মুনসুরুল হক চৌধুরী এবং এ এফ এম মেসবাহ উদ্দিন।

 

পরে আদালতের আদেশে তাদের অধিকাংশই চাকরিতে বহাল হন। চাকরিতে বহাল হয়ে স্বাভাবিকভাবে দায়িত্ব পালন শেষে তাদের অনেকেই ইতিমধ্যে অবসরে গেছেন।

সূত্র- বিডি-প্রতিদিন

আরো খবর »