সিলেটে পরিবহন ধর্মঘটে দুর্ভোগ চরমে

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্যপরিষদের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক জানান, বুধবার সকাল ৬টায় তারা এ ধর্মঘট ডেকেছেন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, সিলেট থেকে দূরপাল্লার কোনো যান ছেড়ে যাচ্ছে না, আসছে না বাইরের গাড়ি, চলছে না স্বল্প পাল্লার যানবাহনও। তবে বিচ্ছিন্নভাবে দু-একটা অটোরিকশা ও হালকা যান চলছে।

পরিবহন শ্রমিকরা কদমতলী বাস টার্মিনাল, টুকের বাজার, টিলাগড়, হুমায়ুন রশিদ চত্বর, চণ্ডীপুল ও তেতলি এলাকায় পিকেটিং করছে।

রাজশাহী থেকে হজরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারত করতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, “হঠাৎ ডাকা ধর্মঘটের কারণে গন্তব্যে পৌছাতে পারছি না। কখন যেতে পারব তাও কেউ বলতে পারছে না। আগে ধর্মঘটের কথা জানতাম না। বাস টার্মিনালে গিয়ে শুনতে পাই ধর্মঘট চলছে।”

দূরপাল্লার বাস চলাচল না করায় ট্রেনের ওপর চাপ পড়েছে। যাত্রীরা রেলস্টেশনে গিয়ে ভিড় করলেও টিকেট না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরছেন অনেকে।

সিলেট রেলওয়ে স্টেশনের ব্যবস্থাপক আব্দুর রাজ্জাক জানান, বাস বন্ধ থাকায় যাত্রীরা ট্রেনে যাওয়ার চেষ্টা করছে। কিন্তু পর্যাপ্ত টিকেট না থাকায় সবাইকে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া বলেন, “দুপুরে পরিবহন শ্রমিক ও মালিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক ডাকা হয়েছে। আশা করি সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে।”

শ্রমিকনেতা ফলিক বলেন, সিলেট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের ইজারা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে মঙ্গলবার দুপুরে যুবলীগের কিছু কর্মী অতর্কিতে পরিবহন শ্রমিকদের ওপর হামলা চালায়।

এর প্রতিবাদে পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ ধর্মঘট ডেকেছে। হামলাকারীদের গ্রেপ্তার না করলে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

তবে সিলেট জেলা যুবলীগের সভাপতি শামীম আহমদ বলেন, “বাস টার্মিনাল ইজারার দখল বুঝে নিতে আমরা সেখানে গিয়েছিলাম। এ সময় শ্রমিকরা অতর্কিত হামলা চালায়।”

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »