হাতি চলার পথে রোহিঙ্গা ক্যাম্প

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

কক্সবাজার: হাতির চলাচলের পথে ও চারণভূমিতে রোহিঙ্গা ক্যাম্প স্থাপন করায় রোহিঙ্গাদের ওপর বন্যপশুটির আক্রমণের আশঙ্কা বাড়ছে। ইতিমধ্যে হাতির আক্রমণে চারজন রোহিঙ্গা মারা গেছেন। এ রকম ঘটনা আরও বাড়বে বলে বন বিভাগের কর্মকর্তা ও হাতি বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন।

হাতি বিশেষজ্ঞ ও আন্তর্জাতিক পরিবেশ প্রতিষ্ঠান আইইউসিএনের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক মো. আবদুল মোতালেব বলেছেন, হাতি নিজের নির্দিষ্ট পথে নিজের মতো চলে। কোনো বাধাকেই সে বাধা মনে করে না। এই পথে রোহিঙ্গা ক্যাম্প বা যেকোনো স্থাপনা থাকলে হাতি তা অতিক্রম করার চেষ্টা করবেই। ভয়টা সেখানে।

কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের কর্মকর্তা আলী কবির বলেন, রোহিঙ্গারা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ছে। তারা হাতির এলাকায় ঢুকে পড়ছে। সে কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে। এটা আরও বাড়ার আশঙ্কা আছে।

১৪ অক্টোবর দুপুরে উখিয়ার বালুখালী-১ ক্যাম্পে বন্য হাতির আক্রমণে চারজন রোহিঙ্গার মৃত্যু হয় বলে বন বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এর মাসখানেক আগে বালুখালীর কাছে মধুরছড়া এলাকায় বন্য হাতির আক্রমণে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছিল। তবে ওই চারজনের মধ্যে কোনো রোহিঙ্গা ছিল না।

কক্সবাজার থেকে টেকনাফে যাওয়ার পথে (পুরোনো পথ) এখন বহু ব্যানার আর সাইনবোর্ড চোখে পড়ে। কিছু ব্যানার আর সাইনবোর্ড ক্যাম্প ও সহায়তার স্থান দেখানোর জন্য। বাকিগুলোর অধিকাংশ রোহিঙ্গাদের সহায়তার নামে এনজিও ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের প্রচার। এদের ভিড়ে ‘সাবধান! বন্য হাতি চলাচলের পথ’ লেখা সাইনবোর্ড আর চোখে পড়ে না। আইইউসিএন ও বন বিভাগের পক্ষ থেকে এই সাইনবোর্ড বালুখালীতে রাস্তার পাশে লাগানো হয়েছিল।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »