বৈরী আবহায়ায় পাটুরিয়া রুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত লঞ্চ সার্ভিস বন্ধ

Feature Image

মানিকগঞ্জ থেকে জালাল উদ্দিন ভিকুঃ  বৈরী আবহাওয়ায় ব্যস্ততম পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে শুক্রবার সকাল থেকে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় উভয় পারে পারপারের অপেক্ষায় থাকা যানবাহনের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

দুর্ঘটনা এড়ানোর লক্ষে পাটুরিয়া, আরিচা রুটের লঞ্চসহ সকল ধরনের নৌ-যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। সন্ধা ৬ টায় এ রিপোর্ট লেখাকালীন উভয় পারে বিভিন্ন ধরনের সহ¯্রাধিক যানবাহন আটকে পড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। ফেরি চলাচলে ধীরগতি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় ঘাটে আটকে পড়া যাত্রীসাধারণ চরম দুভোর্গে পড়ে। এছাড়া, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কেও যান চলাচল করছে ধীরগতিতে। অব্যাহত বৃষ্টির ফলে জনজীবনে নেমে এসেছে অস্তিরতা।

ফেরি সেক্টর বিআইডবিøউটিসি আরিচা অঞ্চলের এজিএম নাসির মোহাম্মদ চৌধুরী জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে চলাচলকারী ছোট-বড় ১৬টির মধ্যে রো-রো বীর শ্রেষ্ট হামিদুর, মতিউর, শাহ্-জালাল ও কুমারী নামের চারটি ফেরি ¯্রােতের বিপরীতে চলাচল করায় বিকল হয়ে পড়ে। এগুলো সচল করতে স্থানীয় ভাসমান কারখানায় রাখা হয়। বাকি ১২ টি ফেরি সৃষ্ট বৈরী আবহাওয়ায় শর্তকতার সহিত মন্তরগতীতে চলাচল করছে। ফেরি চলাচলে ধীরগতি হওয়ায় পারের অপেক্ষায় থাকা যানবাহনের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সাপ্তাহিক ছুটির কারনে এ রুটে যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় যানজট আরোও বৃদ্ধি পায়। আবহাওয়া স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এ অবস্থা চলতে থাকবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

এ দিকে, বিআইডবিøউটিএ আরিচা অঞ্চলের নৌ-নিট্রা বিভাগের সহকারী পরিচালক ফরিদুর রহমান জানান, বৈরী আবহাওয়ায় নৌ-পথে দুর্ঘটনা এড়ানো ও যাত্রী নিরাপত্বার স্বার্থে এরুটের ৩৬টি লঞ্চসহ সকল ধরনের যান চলাচল উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে শুক্রবার দুপুর থেকে বন্ধ করা হয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই যান চলাচল শুরু হবে।

শুক্রবার বিকেলে পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাট ঘুরে দেখা গেছে, ফেরি চলচল ব্যাহত হওয়ায় ঘাট এলাকায় আটকে পড়েছে অসংখ্য যানবাহন। যা ঘাট এলাকা ছেড়ে প্রায় তিন কিলোমিটার বিস্তৃত হয়ে পড়ে। যানজটে আটকে পড়া যাত্রীসাধারণ, পরিবহন শ্রমিক ও ঘাট সংশ্লিরা বৃষ্টির মধ্যে চরম দুর্ভোগের শিকার হন। লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় আটকে পড়া যাত্রীদের অনেকেই ঝুঁকি নিয়ে প্রশাসনের সামনেই ইঞ্জিন চালিত নৌকায় উত্তাল পদ্মা পারি দিচ্ছে। এহেনও অবস্থায় জান মালের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা করা হচ্ছে।

আরো খবর »