খোকসায় টানা বর্ষনের কারনে গ্রাম্য জন জীবন অতিষ্ঠ ০৬ ই কার্তিক ১৪২৪

Feature Image

খোকসা:  কুষ্টিয়ার খোকসায় টানা বর্ষনের কারনে গ্রাম্য জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে । বঙ্গোপসাগরের সৃষ্ট নিম্ন চাপের ফলে দেশে গত বৃহস্পতিবার থেকে আজ শনিবার সকাল পযর্ন্ত টানা বর্ষনের ঘটনা ঘটেছে । টানা বর্ষনের ফলে কৃষকের যেমন ফসলের ক্ষতিসাধন হয়েছে তেমনি জন জীবনের উপর কম প্রভাব পড়েনি । গ্রামের বাড়ী ঘরের মাটে দেওয়াল ঙেঙ্গে পড়া পুকুর পাড় গুলো পানিতে উপচে পড়ে সংরক্ষিত মাছের ক্ষতিসাধন হচ্ছে । এ ছাড়া শ্রম জীবি মানুষ কর্ম বিমুখ হয়ে ঘরে অলস দিন কাটাচ্ছে । কৃষকের ফসলী জমি পানির নিচে চলে যা্ওয়ায় রোপা আমন মৌসুমে ধান সময় মত ঘরে উঠবে কিনা তা নিয়ে গভীর ভাবে ভাবছে ।

এদিকে সৃষ্ট নিম্ন চাপের ফলে টানা বর্ষনের কারনে জলাবদ্ধতার কারন হিসাবে জানা যায় । আমাদের দুর্দশা আমরা নিজেরা ডেকে নিয়ে আসছি। কারন আগ থেকে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার খাল গুলোর বাঁধ দিয়ে অট্রালিকা ঘর বাড়ী সহ স্থাপনা গড়ে তুলছি । প্রশাসন নির্বিকার আমজনতার কোন গল্পই নাই ।

আর যারা ঘর বাড়ীসহ পানি নিষ্কাশন খালের উপর করে রেখেছে তারা হল, তাহেরপুর গ্রামের সাহেদ আলী সেখ, আহেদ আলী সেখ , আহম্মেদ আলী সেক, মহম্ম্দ শেখ, কালাম শেখ (যদিও কালাম সেখের পুকুর পাড়ে) সামনে কালভার্ট দেওয়া আছে) তথাপি কালভার্ট সংষ্কারের অভাবে খালের কালভার্ট পানি চলাচল বন্ধ রয়েছে । কালভার্ট উপর দিয়ে পানি যাচ্ছ নিচ দিয়ে পানি যাচ্ছে না । এ দিকে আব্দুল গনি বিশ্বাস খোকসা কালিতলা ভায়া রাস্তা (এলজিইডির) ব্রিজের উত্তর দিকের পুর্ব পাশের কার্নিস ভেঙ্গ বিজ্রের নিচে খোলা না রেখে দালান নির্মান করায় পানি দ্রুত নিষ্কাশন হচ্ছে না । মহাসিন আব্দুলাহ দালাল নির্মান করায় , আরিফুল ইসলাম ইজ্জত দালান ননির্মান করায় পানি বের হওয়ার খাল গুলো বন্দ্ধ হয়ে গিয়েছে ।

এমন কি বিভিন্ন বাড়ীতে পানির জলা বদ্ধতায় কারনে বিষধর সাপের আস্তানা হিসাবে বেছে নিয়েছে ।
আব্দুল রারেক তাহের পুর তার পাকা ঘর বাড়ী খালের উপর করার কারনে এই জলাবদ্ধতার কারন বলে ক্ষতি গ্রস্থরা জানিয়েছে ।

এই পানির জলাবদ্ধতার কারনে তাহেরপুর ধোকড়াকোল , বৈরাগী পাড়া কুঠিপাড়া সহ প্রায় ১০ টা গ্রামের পানি বন্ধী অবস্থায় রয়েছে । সরকারি ভাবে খাল গুলো সংষ্কারের উদোগ নিলে প্রায় ২০০ শত বিঘা জমির ফসল নষ্ট হওয়ার হাত থেকে বাচত ।
তাই এলাকা বাসীর দাবী সরকার দ্রুত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নিলে ২০০ শত জমির ফসল রোপা আমন মৌসুমে ঘরে তোলা য়েত ।

আরো খবর »