কালকিনিতে তথ্য অফিসারের চাঁদাবাজির মামলায় ন্যায় বিচার পেতে দ্বারে দ্বারে কৃষক পরিবার

Feature Image

কালকিনি অফিস : মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বড়চর কয়ারিয়া গ্রামে জামি নিয়ে দ্ব›েদ্বর জেরে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা দিয়ে একটি অসহায় পরিবারকে গ্রামছারা করেছে একটি প্রভাবশালী মহল। আর মামলাটি জমিজমা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে দেয়া হয়েছে বলে বাদী সহ গ্রামবাসী মুখে শিকার করলেও মামলাটি প্রত্যাহার করা হচ্ছে না। অপরদিকে কৃষক পরিবারটিকে হয়রানি করতে দিনে ভাড়াটে মাস্তান এনে হুমকি ধামকি দেয়া আর রাতে টিনের চালে ঢিল মেরে ভয়ভিতি দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ কৃষক পরিবারের। হামলা মামলা থেকে ভূক্তভোগী পরিবারটি বাঁচতে সালিশ মিমাংসার প্রস্তাব দিলে তাদের বাড়ির বসতভিটা দলিল করে লিখে দিতে বলে বাদী পক্ষ। আর তা করা না হলে একই ভাবে হয়রানি করা হবে বলে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলেও জানায় এই অসহায় কৃষক।

গ্রামবাসী, পুলিশ ও ভূক্তভোগী পরিবার জানায়, বড়চর কয়ারিয়া গ্রামে শাহ আলম মৃধার বাড়ির পৈর্তৃক জমি জোর পূর্বক দখল করে বহুতল পাকা ভবন নির্মান করে তাদের প্রতিবেশী ঢাকার সেগুন বাগিচার তথ্য অফিসার মোতালেব মৃধা। এসময় শাহ আলম মৃধার রোপন কৃত চারাগাছ ও সীমানা পিলার উফরে ফেলা হয়।

এনিয়ে শাহ আলম মৃধা ন্যায় বিচার পেতে কালকিনি থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে কালকিনি থানার এস আই সঞ্জয় কুমার সাহা সরেজমিনে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়ে দিন ধায্যকরে উভয় পক্ষদের থানায় আসার নোটিশ করে। কিন্তু জমি দখলকারীরা সেই বিষয়টিকে আমলে না নিয়ে প্রতিপক্ষদের হয়রানী করতে কৃষক পরিবারের ৬জনকে আসামী করে কোর্টে একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করে। আদালত বিষয়টি কালকিনি থানার প্রতি তদন্ত ও মামলা রেকর্ডের নির্দেশ দিলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সেই পরিবারের ২জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

নিজেদের জমিজমা হারিয়ে এবং মামলার বোঝা মাথায় নিয়ে কৃষক পরিবারটি মিমাংসার প্রস্তাব দিলে তাদের বসত ভিটা দলিল মূলে লিখে দিতে প্রস্তাব করে সেই প্রভাবশালী মহল। অপরদিকে বাড়ির পুরুষ মানুষ গ্রেফতারের ভয়ে পালিয়ে থাকলেও থেমে নেই বাদি পক্ষ। তারা দিনে ভাড়াটে মাস্তান এনে মহিলা ও শিশুদের ভয়ভিতি দেখাচ্ছে এবং রাতে টিনের চালে ঢিল ছুঁড়ে পরিবারটির মধ্যে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। তবে কৃষক পরিবারটির অভিযোগ বহুতল ভবনের পাশে তাদের ছোট্ট টিনের ঘরটি থাকায় সেই পাকা বাড়ির সৌন্দর্য নষ্ট হওয়ার কারনে কৃষক পরিবারটির জমিজমা হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে প্রতিপক্ষ।

এ ব্যাপারে কালকিনি থানার এস.আই সঞ্জয় কুমার সাহা বলেন ‘ শাহ আলম মৃধার বাড়ির সীমানা পিলার ও গাছ উফরে ফেলার অভিযোগে আমি তদন্তে গেলে ঘটনার সত্যতা পেয়ে উভয় পক্ষদের থানায় বসার দিন ধায্যকরি। কিন্তু প্রতিপক্ষরা তা উপেক্ষা করে আদালতে একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করে। বিষয়টি জমিজমার দ্ব›দ্ব।

এ ব্যাপারে চাঁদাবাজি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কালকিনি থানার এসআই বাবুল বসু বলেন ‘ বাদী আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালতের নির্দেশে কালকিনি থানায় তা রেকর্ড করা হয় এবং মামলার ২জন আসামী গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। এখন মামলাটি তদন্তধিন।

এ ব্যাপারে মামলার বাদী মোতালেব মৃধার ভাতিজা রুমেজ মৃধা বলেন ‘ শাহ আলম মৃধারা আমাদের নামে থানায় অভিযোগ করেছে বিধায় আমরা তাদের নামে মামলা দায়ের করেছি।’
তবে গ্রামবাসী জানায় যাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কোনদিন কোন অপকর্ম করার কোন অভিযোগ নাই। এমনকি তারা গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষ। শুধু জমিজমা নিয়ে দ্ব›েদ্বর জেরে তারা চাঁদাবাজির মামলার শিকার হয়েছে।’

আরো খবর »