মানিকগঞ্জে জেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

Feature Image

মানিকগঞ্জ থেকে জালাল উদ্দিন ভিকুঃ মানিকগঞ্জ জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি ও জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি বাবুল সরকারের বিরুদ্ধে পরিবহন সেক্টর থেকে অবৈধ চাঁদা আদায়, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রন, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জমি দখল, চাকুরী দেওয়া নামে যৌন হয়রানিসহ নানা বিধ অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মানিকগঞ্জ জেলা বাস মিনিবাস মাইক্রোবাস, অটোট্যাম্পু ওনার্স গ্রæপ।

শনিবার দুপুরে মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন মানিকগঞ্জ জেলা বাস মিনিবাস মাইক্রোবাস, অটোট্যাম্পু ওনার্স গ্রæপের সভাপতি পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম ।

লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ্য করা হয়, বাবুল সরকার এক সময় গাড়ী হেলপার থেকে ড্রাইভার হয়। এর পর শ্রমিক নেতা হয়েছে দীর্ঘ দিন ধরে মানিকগঞ্জে পরিবহন থেকে চাঁদা আদায় করে আসছে। বাস, মাইক্রোবাস, টেম্পু, হ্যালোবাইক ও সিএনজি থেকে প্রতিদিন গড়ে ৬ থেকে ৭ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করে। চাঁদা না দিলে গাড়ীতে মাদক রেখে পুলিশ দিয়ে হয়রানি করে মালিকদের কাছ থেকে টাকা আদায় করে। জোড় করে গার্মেন্টস ব্যবসায় মালিকদের গাড়ী পাঠিয়ে ওই টাকা আত্মসাত করে। চাঁদাবাজি করে বাবুল সরকার নামে বেনামে কয়েকটি ফ্ল্যাট ও গাড়ী মালিক হয়েছে। সে একজন বিএনপি কর্মী হয়ে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন টিপু ও জামাত সমর্থিত নজরুল ইসলাম নজুকে দিয়ে অবৈধ কমিটি করে পরিবহন থেকে চাঁদাবাজি করে রাতা রাতি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছে। সে তার ভাই লাভলু ভাগ্নে পলাশ ও বিলাশকে দিয়ে মাদক ব্যবসা পরিচালনা করছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপনকে জড়িয়ে মানিকগঞ্জ জেলা বাস মিনিবাস মাইক্রোবাস ওনার্স গ্রæপের আহবায়ক জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এনায়েত হোসেন টিপু ও মানিকগঞ্জ জেলা সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি বাবুল সরকার বুধবার জেলা প্রশাসকের কাছে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে ওই অভিযোগেও তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন বাস মালিক ইদ্রিস আলী, ইয়সিন, হায়দার আলী, বাবুল সরকারের কমিটির শ্রমিক ইউনিয়নের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, কোষাধ্যক্ষ গোলাম মোঃ খান শামীম ও সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল জলিল।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি বাবুল সরকার অবৈধ কমিটি বানিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি করছে। অথচ তারাই স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপনকে জড়িয়ে তার পরিবারের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছেন। প্রশাসন চাঁদাবাজি বন্ধ করে দেওয়ার পর কাজী এনায়েত হোসেন টিপু ও বাবুল সরকার গত ১৫ অক্টোবর পরিবহন ধর্মঘটের নামে আগের দিন রাতে তারা লোক দিয়ে শিবালয়ে একটি বাস পুড়িয়ে দিয়েছেন। পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি বন্ধসহ বাবুল সরকার ও কাজী এনায়েত হোসেন টিপুর হাত থেকে পরিবহন সেক্টরকে রক্ষা তাদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে।

 

আরো খবর »