মানিকগঞ্জে জেলা আওয়ামীলীগের বিক্ষোভ

Feature Image

মানিকগঞ্জে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতিকে দল থেকে বহিস্কার ও গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ
মানিকগঞ্জ থেকে জালাল উদ্দিন ভিকুঃ  স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন ও তার ভাইকে জড়িয়ে পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজির মিথ্যা অভিযোগ প্রতিবাদে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতিকে গ্রেফতার ও তাদের দল থেকে বহিস্কারের দাবিতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে সদর উপজেল আওয়ামীলীগ।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইসরাফিল হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুল মজিদ ফটো, যুগ্ম সম্পাদক সুলতানুল আজম আপেল, জেলা যুবলীগের সভাপতি সুদেব সাহা, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি লিয়াকত ভান্ডারি, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আফসার সরকার, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, জেলা পরিষদের সদস্য শামীম হোসেন, জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক রাজা, ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, নাসির উদ্দিন, আব্দুর রউফ, জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি মোস্তাফা জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল জলিল প্রমূখ।

বক্তরা অভিযোগ করে বলেন জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি বাবুল সরকার ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন টিপু দীর্ঘ দিন ধরে পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি করে আসেছে। সম্প্রতি ওই চাঁদাবাজি প্রশাসন বন্ধ করে দেয়।

এর প্রেক্ষিতে বাবুল সরকার ও কাজী এনায়েত হোসেন টিপু জেলা প্রশাসনের কাছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন তার ভাই সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইসরাফিল হোসেন ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলামের নাম জড়িতে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছেন। এতে প্রতিমন্ত্রীসহ দলীয় নেতাদের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। অবিলম্বে কাজী এনায়েত হোসেন টিপু ও বাবুল সরকারকে দল থেকে বহিস্কারসহ তাদের গ্রেফতার দাবি জানানো হয়।

এর পর মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড থেকে নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। বিক্ষোভ মিছিলটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। পরে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি স্মারক লিপি দেওয়া হয়।

আরো খবর »