পেট থেকে বের করা হল ৬৩৯ টি পেরেক

Feature Image

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের গোবরডাঙার বাসিন্দা প্রদীপের পেট থেকে বের করা হল ৬৩৯ টি পেরেক! তিনি স্কিত্জোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত। দীর্ঘদিন ধরেই বদ্ধ ঘরে একা বসে থেকে খেয়েছেন লোহার পেরেক।
মাটির সঙ্গে পেরেক মিশিয়ে খাওয়াই ছিল তার নেশা। দিনের পর দিন এমন অদ্ভুত কাণ্ডকারখানা চালিয়ে গেলেও টেরটিও পাননি তার পরিবারের কেউ। এমনকি ক্ষতও তৈরি হয়নি গলাতে। কিন্তু পেটে অসহ্য ব্যাথা হওয়াতেই সামনে এই কাণ্ড।

রোগীর এমন ‘খাদ্যাভ্যাস’ দেখে চক্ষু চড়কগাছ চিকিৎসকদেরও। অতঃপর অস্ত্রোপচারের ব্যবস্থা এবং সোমবার কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওই ব্যক্তির পেট থেকে বের করা হল ৬৩৯টি পেরেক।

গোবরডাঙার বাসিন্দা প্রদীপ ঢালি বেশ কয়েক মাস ধরে তলপেটের ব্যাথায় কষ্ট পাচ্ছিলেন। পরিবারের লোক প্রথমে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যান। অনেক চিকিৎসার পরও ধরা পড়েনি পেটেব্যাথার আসল কারণ।

এদিকে দিন দিন অবস্থার অবনতি হতে থাকে প্রদীপের। তলপেটে অসহ্য ব্যাথার সঙ্গে বমিও শুরু করেন তিনি। পরে তাকে সেখান থেকে স্থানান্তরিত করা হয় কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তার চিকিৎসার দায়িত্বে ছিলেন কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বিশিষ্ট চিকিৎসক সিদ্ধার্থ বিশ্বাস। রোগ ধরতে তিনিও প্রথমে বেশ কিছুটা চাপে পড়েছিলেন। তবে পেটের বিভিন্ন পরীক্ষার ফল দেখে হতভম্ভ হয়ে যান তিনিও। দেখা যায়, প্রদীপ ঢালির পাকস্থলীতে জমা হয়েছে বহু পেরেক। এরপরই তিন সদস্যের মেডিক্যাল টিম গঠন হয় প্রদীপের চিকিৎসায়। ঠিক করা হয় অপারেশনের দিনও।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এই অস্ত্রোপচারে সামান্য ভুলেই মারাত্মক ক্ষতি হতে পারত রোগীর। তার শরীরে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারত মুহূর্তে। সোমবার সকালে তিন চিকিৎসকদের দল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রায় ১ ঘণ্টা ৪৫ মিনিটের চেষ্টায় সেই অসাধ্য সাধন করেন।

আরো খবর »