বিমান নিয়ে ‘নাশকতার পরিকল্পনাকারী’ পাইলট বরখাস্ত

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: বিমান নিয়ে ‘নাশকতার পরিকল্পনা’র অভিযোগে গ্রেফতার বাংলাদেশ বিমানের ফার্স্ট অফিসার (কো-পাইলট) সাব্বির এনামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বুধবার সাব্বিরকে বরখাস্ত করা হয় বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন বাংলাদেশ বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ।

সোমবার মধ্যরাতে রাজধানীর মিরপুরের দারুসসালাম এলাকা থেকে সাব্বিরসহ চার জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছিল র‌্যাব।

এর পর র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান জানান, পাইলট সাব্বিরের পরিকল্পনা ছিল- যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে হামলার মতো বিমান নিয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যক্তিদের বাসভবনে আঘাত হানা।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরও জানান, সাব্বির ২০০৯ সালে বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমি থেকে বিমান চালনার প্রশিক্ষণ নেন। ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বেসরকারি বিমান সংস্থা রিজেন্ট এয়ারওয়েজে চাকরি করেন। এ সময় স্পেন থেকে বিশেষ প্রশিক্ষণ নেন তিনি।

২০১৪ সাল থেকে সাব্বির বাংলাদেশ বিমানের কো-পাইলট হিসেবে কর্মরত। তিনি বিমানের বোয়িং-৭৩৭ চালান। তিনি সর্বশেষ সোমবার ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা ফ্লাইট পরিচালনা করেছেন।

সাব্বির তুরস্ক থেকেও বিমান চালনার ওপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি দুবাই, কাতার, মাসকাট, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড ছাড়াও অন্যান্য দেশেও বিমানের কো-পাইলট হিসেবে কাজ করেছেন।

র‌্যাব জানিয়েছে, গত সেপ্টেম্বরে দারুসসালামে জঙ্গিবিরোধী অভিযানকালে নিহত আত্মঘাতী জেএমবি সদস্য মীর আকরাবুল করিম ওরফে উপল ওরফে আবদুল্লাহ পাইলট সাব্বিরের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।

তখন থেকেই তার সঙ্গে সাব্বিরের ঘনিষ্ঠতা ছিল। একপর্যায়ে সাব্বির মানিক ফরহাদ ওরফে সারোয়ার জাহানের কাছে ‘বায়াত’ গ্রহণ করেন।

র‌্যাব পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার আগে ও পরে আবদুল্লাহ, পাইলট সাব্বির, সারোয়ার একত্রে নাশকতার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনায় ছিল- সাব্বির বিমান চালিয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গের বাসভবনে আঘাত করা বা বিমানের যাত্রীদের জিম্মি করে মধ্যপ্রাচ্যে নিয়ে যাওয়া। সম্প্রতি বিমান থেকে বেতনভাতাদি বাবদ ১০ লাখ টাকা পাওয়ার কথা ছিল। সেই টাকা পেলে আবদুল্লাহর মাধ্যমে সংগঠনে দান করার ওয়াদাও করেছিলেন তিনি।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »