দুই হাত নেই, পায়ে লিখে জেএসসি দিচ্ছে সিয়াম

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

বরিশাল: ‘সিয়াম অন্য শিক্ষার্থীদের মতো বেঞ্চে বসে পরীক্ষা দিতে পারেনি। তার দুই হাত অচল থাকায় সে পা দিয়ে লিখে পরীক্ষা দেয়। পা দিয়ে লিখলেও ওর লেখা ভাল। অন্যদের আগেই সিয়াম তার উত্তরপত্র লেখা শেষ করেছে।’ কথাগুলো বলছিলেন বরিশালের আগরপুর ডিগ্রী কলেজ জেএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান।

বাবুগঞ্জ উপজেলার চরহোগলপাতিয়া গ্রামের দরিদ্র পরিবারের সন্তান সিয়াম হোসেন লিমন (১৩)। ৬ বছর বয়সে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গুরুতর আহত হয় সিয়াম। ওই সময় সিয়াম প্রাণে বেঁচে গেলেও দুটি হাত কেটে ফেলতে হয়। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা ও দরিদ্রতা বার বার বাঁধা হয়ে দাড়িয়েছে তার লেখা পড়ায়। কিন্তু দমার পাত্র নয় সিয়াম। তাই পা দিয়ে লিখেই চালিয়ে যাচ্ছে লেখাপড়া। এবার উপজেলার আগরপুর ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় পা দিয়ে লিখে অংশ নিচ্ছে সিয়াম।

সিয়াম আগরপুরের আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র। সিয়ামের বাবা সামসুল হক ইলেকট্রিক মিস্ত্রী। মা রুমা বেগম গৃহিণী। সিয়ামের আরও দুই বোন আছে। সিয়ামের মা রুমা বেগম বলেন, সিয়াম নানা বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। সেখান থেকে বেঁচে ফিরেছে আল্লাহ’র মেহেরবানিতে। তবে দুটি হাত কেটে বাদ দিতে হয়েছে। শিশুকাল থেকেই সিয়ামের পড়াশোনার প্রতি খুব ঝোঁক। আমরা গরিব মানুষ। অনেক কষ্টে, এই অচল ছেলেকে লেখাপড়া করাচ্ছি।

আগরপুর আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজির শিক্ষক সাইদুর রহমান জানান, স্কুলে সিয়ামের শতভাগ উপস্থিতি রয়েছে। পড়াশোনার প্রতিও রয়েছে মনোযোগ। এ ধরনের অদম্য মেধাবী ও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের পৃষ্ঠপোষকতায় সমাজের ধনাঢ্য শ্রেণির মানুষকে এগিয়ে আসা উচিত। উপযুক্ত পৃষ্ঠপোষকতা পেয়ে অনেক প্রতিবন্ধী মানুষ সমাজের বোঝা না হয়ে সম্পদ হয়েছেন, সিয়ামও তাদের একজন হতে চায়।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »