নাসিরদের তিনে তিন

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ক্রীড়া ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) এ সিলেট যেন অপ্রতিরোধ্য। টানা দুই ম্যাচে বিজয় ছিনিয়ে নেয়ার পর মঙ্গলবারও বিজয়ের মালা পরেছে সিলেট সিক্সার্স। এ নিয়ে এবারের বিপিএলে জয়ে হ্যাট্রিক করলো নাসিরের দল।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে দারুণ সূচনা করা দলটি শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেট হারিয়ে ২০৫ রান সংগ্রহ করে। বিপরীতে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রান করতে সমর্থ হয় রাজশাহী কিংস।

সিলেটের পাহাড়সম রানের সামনে দাঁড়াতে পারেনি রাজশাহী কিংস। দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শুরুটা ভালো করলেও পরের ব্যাটসম্যানরা তেমন সুবিধা করতে পারেনি। যার ফলে পরাজয়টা আস্তে আস্তে রাজশাহীর দিকেই ঝুঁকে পড়ে।

ব্যাট করতে নেমে উপুল থারাঙ্গা ও ফ্লেচারের বিধ্বংসী রূপ রাজশাহীর বোলারদের নাজেহাল করে ছেড়েছে। উপুল থারাঙ্গা অর্ধশতক পূর্ণ করার পরই ফ্রাঙ্কলিনের বলে ফিরে যান। তিনি ৩৭ বল মোকাবেলা করে অর্ধশতক পূর্ণ করেন। তার এই ইনিংসটি সাজানো ছিল ৫টি চার ও একটি ছক্কার মারে।

অর্ধশতক থেকে মাত্র দুই রান দূরে থেকে প্যাভিলিয়নের দিকে পা বাড়ান ফ্লেচার। রাজশাহীর উইকেট কিপার মুশফিকুর রহীম তাকে ফিরিয়ে দেন। তিনি ৩০ বলে ৪৮ রান করেন। যাতে ৫টি চার ও ৩টি ছক্কার মার ছিল।

এরপর সাব্বির এসে তেমন সুবিধা করতে পারেননি। ১৪ বলে ১৬ রান করে সাজঘরে ফিরে যান। পরে ধানুষ্কা গুণাথিলাকা এসে তার চওড়া ব্যাটে রাজশাহীর বোলারদের শাসন করতে থাকেন। দুটি চার ও ৩টি ছক্কার মারে মাত্র ২২ বলে ৪২ রান করেন তিনি।

রা হোয়াইটলি ২৫ রান করে অপরাজিত থাকেন। আর কোন ব্যাটসম্যান দুই অংশ স্পর্শ করতে না পারলেও ৬ উইকেট হারিয়ে ২০৫ রানের বিশাল স্কোর সংগ্রহ করে সিলেট।

রাজশাহীর হয়ে কক উইলিয়ামস দুটি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট নেন ফরহাদ রেজা ও জেক ফ্রাঙ্কলিন।

ব্যাটিংয়ে নেমে ওপেনার লুক রাইটের অর্ধশতকে ভালো সূচনা করে রাজশাহী। আরেক ওপেনার মুমিনুল হক করেন ২৪ রান। রাইট ৩৯ বলে ফিরে যাওয়ার আগে স্কোরবোর্ডে জমা করে যান ব্যক্তিগত ৫৬ রান। যাতে ছিল ৩টি চার ও ৪টি ছক্কার মার। মুমিনুল ১৬ বলে করা রানে একটি বাউন্ডারি ও দুটি ওভার বাউন্ডারি হাঁকান।

রানের খাতা না খুলেই ফিরে যান রনি তালুকদার। মুশফিকুর রহীম আবুল হাসানের বলে সাব্বির রহমানের কাছে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যাওয়ার আগে করেন ১১ রান। রানের খাতা খুলতে পারেননি সামিত প্যাটেলও।

আশা জাগিয়ে রান আউট হয়ে ফিরে জেক ফ্রাঙ্কলিন। তার ব্যাট থেকে আসে গুরুত্বপূর্ণ ৩৫ রান। তিনি ৩টি চার ও ২টি ছক্কার মার মারেন; খরচ করেন ২৩টি বল। পরের ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় আস্তে আস্তে পরাজয়কে বরণ করতে বাধ্য হয় রাজশাহী।

সিলেটের হয়ে আবুল হাসান ও প্লাঙ্কেট নেন ৩টি করে উইকেট। কামরুল ইসলাম রাব্বি পান একটি উইকেট।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »