অবশেষে পাথরখেকো শামীমের বিরুদ্ধে মামলা

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

সিলেট: অবশেষে কোম্পানীগঞ্জের পাথরপল্লিতে অভিযান চালিয়েছে পরিবেশ অধিদফতর। এক যুগেরও বেশি সময় থেকে চিহ্নিত পাথর সন্ত্রাসীরা খুবলে খাচ্ছে গোটা কোম্পানীগঞ্জ। পরিবেশের ক্ষতি করে টিলা ও পাহাড় কেটে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করে ধ্বংস করে চলেছে একের পর এক এলাকা।

স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে পাথর সন্ত্রাসীরা অবৈধভাবে শত শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। কালো টাকার প্রভাবে রাজনীতিবিদ, পুলিশসহ এক শ্রেণির সাংবাদিক সবাইকেই নিয়ন্ত্রণ করে স্থানীয় গডফাদাররা। নামমাত্র উৎকোচের বিনিময়ে চলছিল লুটপাটের মহোৎসব।

মঙ্গলবার থেকে লাগাতার দুই দিনের অভিযান পরিচালনা করা হয় পুরো কোম্পানীগঞ্জ এলাকায়। উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল লাইছ, পরিবেশ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক পারভেজ আহম্মেদ ও হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে অভিযান চলিয়ে ৩১টি বোমা মেশিন ধ্বংস করা হয়।

পরিবেশ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক পারভেজ আহম্মদ বাদী হয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানায় পাথরখোকো শামীমসহ ২২ জনের নামোল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরো ৭০-৮০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।

এদিকে মামলা দায়েরের খবর ছড়িয়ে পড়লে আসামিরা ও তাদের লোকজন সিলেট-ভোলাগঞ্জ সড়ক রাস্তা অবরোধ করেন। তারা অর্নিদিষ্টকালের জন্য রাস্তা অবরোধ করার ঘোষণা দিয়েছেন। হঠাৎ করে গতকাল দুপুরে সড়ক অবরোধ করায় শত শত ট্রাক ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা আটকা পড়েছে।

স্থানীয়রা জানান, মামলা দায়েরের পরে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। মামলা দায়ের করায় কোম্পানীগঞ্জের সাধারণ মানুষ পরিবেশ অধিদফতরের কর্মকর্তাদের সাধুবাদ জানান এবং তারা আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »