ফ্রেন্ডশিপের আড়ালে বড়সড় দেহ ব্যবসার পর্দাফাঁস

Feature Image

 

মনের মত সঙ্গী বা সঙ্গিনী খুঁজে দেওয়ার গরমাগরম বিজ্ঞাপন দিয়েছিল একটি সেক্স র‍্যাকেট সংস্থা। বিজ্ঞাপনের সুকৌশলি লাইনের আড়ালে উষ্ণ সম্পর্কে জড়ানোর হাতছানি। লোভে পড়ে বিজ্ঞাপনের ফাঁদে পা’ও দিয়েছিলেন বেশ কয়েকজন উঠতি বয়সের যুবক-যুবতী।

 

‘বোল্ড রিলেশন’, ‘হাউসওয়াইফ’দের বন্ধুত্ব পাওয়ার লোভে অনেকেই ওই সংস্থায় ১০-২০ হাজার টাকা দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। সংস্থার দাবি ছিল, তারা আউটডোরে ঘুরতে যাওয়ার জন্য আধুনিকা মহিলা ও পুরুষদের যোগান দিতে সক্ষম।

 

একটি বাংলা দৈনিকে বয়স ও চাহিদা অনুযায়ী পুরুষদের জন্য মহিলা এবং মহিলাদের জন্য পুরুষ খুঁজে দেওয়ার বিজ্ঞাপন দিয়েছিল সংস্থাটি। সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার জন্য কলকাতা, হলদিয়া, দুর্গাপুর, সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ফোন করে প্রায় শতাধিক যুবক-যুবতী৷ এরপর তারা সংস্থায় এসে যোগাযোগ করলে জানান হয় একটি রেজিস্ট্রেশন করতে হবে তাদের৷খরচ পড়বে হাজার দশেক টাকা। পরে ধাপে ধাপে দিতে হত আরও টাকা।

 

Loading…

কিন্তু ওই সংস্থার আধিকারিকদের টাকা দিয়েও প্রতিশ্রুতি মত সঙ্গী বা সঙ্গিনী মিলল না। তখন টনক নড়ে বিশ্বনাথ মাইতি নামে এক প্রতারিত যুবকের। বৃহস্পতিবার হাসনাবাদ থানায় অভিযোগ করেন বিশ্বনাথবাবু।

 

এরপরই সক্রিয় হয় পুলিশ। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সেই প্রতারণা চক্রের তিন পাণ্ডাকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধৃত তিন ব্যক্তি শ্যামসুন্দর মণ্ডল, দেবজ্যোতি অধিকারী ও অশোক কর্মকার হাসনাবাদ থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আরো খবর »