মীর মশাররফ হোসেনের জন্মবার্ষিকী পালন

Feature Image

আজ ১৩ নভেম্বর অমর কথাসাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেনের ১৭০তম জন্মবার্ষিকী
আজ ১৩ নভেম্বর-১৭ সোমবার বাংলা সাহিত্যের অমর কথাসাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেনের ১৭০তম জন্মবার্ষিকী। এ উপলক্ষে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন কুমারখালী উপজেলার লাহিনীপাড়াস্থ মীরের বাস্তভিটায় দুদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে।

প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন, ৭৮,কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ। কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী দিনে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন, কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার এস এম মেহেদী হাসান, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, কুমারখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান খান, কুষ্টিয়া জেলা জাসদ সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম মহসিন ও কুষ্টিয়া শহর আওয়ামীলীগ সভাপতি তাইজাল আলী খান প্রমূখ।

মীর মশাররফ হোসেনের জীবন ও সাহিত্যকর্মের উপর মুখ্য আলোচক থাকবেন, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন, কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: শাহীনুজ্জামান। আলোচনা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশনা করবেন, জেলা শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীরা।

মীর মশাররফ হোসেন সাহিত্যকর্ম রচনার পাশাপাশি সাংবাদিকতা ও সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেছেন। ভারতী, সংবাদ প্রভাকর, মিহির, হাফেজ, আহমদী, নবরত্ন প্রভৃতি পত্রিকায় তিনি নিয়মিত লিখতেন।ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি বাংলা ও ফারসি ভাষা রপ্ত করেন তিনি। ধর্ম, আইন, প্রবন্ধ, ইতিহাস বিষয়ে আলোচনা, নাটক, গান ও উপন্যাস রচনা করেছেন তিনি। এরমধ্যে কোরআন, শাহনামা, গুলিস্তা, কাসাসুল আম্বিয়া, রামায়ন-মহাভারত, বিদ্যাসুন্দর দাশরথী রায়ের পাঁচালী, বানভট্রের কাদম্বরী উল্লেখযোগ্য।

১৮৬৯ সালে লেখা মীর মশাররফ হোসেনের “রত্নবতী” উপন্যাসটি ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। এরপর তাঁর অমর সৃষ্টি ১৮৮৫ সালে লেখা “বিষাদ সিন্ধু” এ ছাড়া উদাসীন পথিকের মনের কথা, রাজিয়া খাতুন, তহমিনা, বাঁধাখাতা, বধূমাতাও উল্লেখ্য। তার রচিত নাটক বসন্ত কুমারী ও জমিদার দর্পণ আমাদের বাংলাসাহিত্যে এক বিশেষ জায়গা দখল করে আছে।

১৮৪৭ সালের ১৩ নভেম্বর কুমারখালী উপজেলার লাহিনীপাড়ায় জন্মগ্রহণ তিনি করেন। তার পিতার নাম ছিল মীর মোয়াজ্জেম হোসেন, মাতার নাম ছিল দৌলতন নেসা। ১৯১১ সালের ১৯ শে ডিসেম্বর ইন্তেকাল করেন।

আরো খবর »