ক্লিওপেট্রার সৌন্দর্যের গোপন রহস্য!

Feature Image

ইতিহাস অনুযায়ী পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দরী নারী ছিলেন ক্লিওপেট্রা। সব পুরুষই নাকি তাঁকে নিজের রানি বানানোর স্বপ্ন দেখতেন।

কিন্তু ক্লিওপেট্রা কীভাবে নিজের রূপচর্চা করতেন, সেটা জানেন না অনেকেই। বর্তমানে সকল নারীই তাঁর মতো সুন্দরী হয়ে উঠতে চান। তাই আপনাদের জন্য ক্লিওপেট্রার সৌন্দর্যের কিছু গোপন রহস্য তুলে ধরা হল। এগুলি ব্যবহার করলে আপনিও হয়ে উঠবেন আপনার মনের মানুষের ‘ক্লিওপেট্রা’।

ক্লিওপেট্রার সৌন্দর্যের প্রধান চাবিকাঠি ছিল তাঁর ‘ফেমাস মিল্ক বাথ’। এই মিল্ক বাথ তৈরি করতে এক লিটার দুধে ছোট এক কাপ মধু মিশিয়ে নিন। খেয়াল রাখবেন যাতে দুধ খুব বেশি গরম না হয়। ফোটানো দুধ একেবারেই ব্যবহার করবেন না। কারণ এতে দুধের মেডিসিনাল উপাদান নষ্ট হয়ে যায়।

দুধ গরম হলে মুধর গুণও নষ্ট হতে পারে।
এবার হালকা গরম পানিতে দুধের মিশ্রণ মিশিয়ে নিন। ২০ মিনিট এই পানিতে শরীর ভিজিয়ে রাখুন। মিল্ক বাথের পর স্ক্রাবিং অবশ্যই প্রয়োজন। ৩০০ গ্রাম সি-সল্টের সঙ্গে আধকাপ ক্রিম মিশিয়ে সারা শরীরে লাগিয়ে স্ক্রাবিং করে নিন। এতে ত্বক অনেক বেশি মসৃণ হবে ও সানবার্নের প্রভাবও কমবে।

মুখের ত্বকে সতেজ রাখতে ফেস মাস্ক অবশ্যই জরুরী। মধু ও দুধের তৈরি মাস্ক মুখে ব্যবহার করুন। মধু ও দুধ সমান পরিমাণে মিশিয়ে সারা মুখে মাখিয়ে রাখুন। আধঘণ্টা পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর প্রয়োজন ক্লে মাস্ক। মুলতানি মাটি, মধু, টক দই ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে দিন। এরপর প্রথমে গরম পানি ও পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এছাড়াও প্রতিদিন দু’বার করে অ্যাপেল সিডার ভিনিগার নিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

মাথার চুল ভাল রাখতে মাথায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করুন। এছাড়াও নিয়মিত হেনা চুলের জন্য উপযোগী। কাজের চাপে অনেকের পক্ষেই হয়তো প্রতিদিন এটি ব্যবহার করা সম্ভব নয়। তাও সপ্তাহে অন্তত তিনদিন চুলে হেনা ব্যবহার করুন।

আরো খবর »