বর্ণাঢ্য আয়োজনে গুইমারাতে শান্তিচুক্তি দিবস পালিত

Feature Image

 

খাগড়াছড়ি থেকে মোঃ আবদুর রউফঃ  ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা আর বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে পার্বত্য খাগড়াছড়িতে ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২০বছর পূর্তি উদযাপিত হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টার দিকে গুইমারা রিজিয়নের আয়োজনে বিভিন্ন উপজেলার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়ী ও সুশীল সমাজের অংশগ্রহণে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা গুইমারা কলেজ ক্যাম্পাস থেকে শুরু করে গুইমারা রিজিয়ন মাঠ প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়। গুইমারা রিজিয়ন মাঠ প্রাঙ্গনে শান্তির প্রতীক পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে শান্তিচুক্তির ২০তম বর্ষপূর্তির উদ্ভোধন করেন খাগড়াছড়ি আসনের সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি।

পরে শান্তিচুক্তির ২০তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি আসনের সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। এসময় গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রি. জে. মোঃ কামরুজ্জামান (এনডিসি,পিএসসি,জি), খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, গুইমারা বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন (পিএসসি), রামগড় বিজিবি জোন কমান্ডার ল্যা.কর্নেল মোঃ জাহিদুল রশিদ (পিএসসি), মাটিরাঙ্গা জোন কমান্ডার ল্যা. কর্নেল কাজী শামশের উদ্দিন (পিএসসি, জি), মানিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পংকজ বড়ুয়া প্রমুখ বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ও উন্নয়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন,”পার্বত্য শান্তিচুক্তির পূর্ব ও পরবর্তী অনেক পরিবর্তন হয়েছে। সরকার চুক্তি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে দেশের উন্নয়নের স্রোতধারার সাথে পার্বত্যবাসীকে সম্পৃক্ত করতে চায়। শেখ হাসিনার সরকার শান্তিচুক্তি করে পাহাড় ও সমতলের বৈষম্য দুর করতে সক্ষম হয়েছে। ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতও বন্ধ করতে সক্ষম হবে”।

গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রি. জে. মোহাম্মাদ কামরুজ্জামান (এনডিসি,পিএসসি,জি), বলেন, “একই ছামিয়ানার নীচে, একই ব্যানারে, একই মঞ্চে পাহাড়ী-বাঙ্গালী সকলের উপস্থিতিই শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের বড় স্বীকৃতি”। তিনি আরো বলেন, “সারাদেশের ন্যায় পার্বত্য চট্টগ্রামেও শান্তি চুক্তির মাধ্যমে নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তির ফলে পাহাড়ের উন্নয়ন হচ্ছে এবং শান্তি বিরাজ করছে”।

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করে বলেন, “পাহাড়ের সংঘাতের দিন শেষ। পাহাড়ে এখন উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। সমতল থেকে দলে দলে মানুষ আসছে পাহাড়ের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে। এখানে পর্যটন শিল্পের বিকাশ শান্তিচুক্তিরই ফসল”।

এছাড়াও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম সালাউদ্দিন, গুইমারা উপজেলা চেয়ারম্যান উশেপ্রু মারমা, লক্ষিছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপারজ্যেতি চাকমা, গুইমারা উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ঝর্না ত্রিপুরা, গুইমারা থানা ইনচার্জ ওসি শাহাদাত হোসেন টিটু, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, মাটিরাঙ্গা থানার ইনচার্জ মোঃ জাকির হোসেন গুইমারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মেমং মারমাসহ বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা।

শান্তিচুক্তির ২০বছর পূর্তি উপলক্ষে বিকালে গুইমারা রিজিয়ন মাঠে সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা ও মেলার আয়োজন রয়েছে। এতে বাংলাদেশের অন্যতম ব্যান্ড সোলস দর্শকদের মাতাবেন। এছাড়াও স্থানীয় ও চট্টগ্রামের শিল্পীরাও অংশগ্রহণ করবেন।

আরো খবর »