কুষ্টিয়ায় সড়ক মহাসড়কে বাড়ছে লাশের মিছিল

Feature Image

 

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়া থেকে ভেড়ামারা ও ঝিনাইদহগামী মহাসড়কের বেহাল দশা। আর এ কারণে প্রতিনিয়ত মৃত্যুকূপে পরিনত হয়ে উঠেছে রাস্তাটি। ভাঙা, খানাখন্দ ও ধুলোয় ভরা রাস্তা হবার কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা।

সাম্প্রতি মটরসাইকেলে মজমপুর পার হবার সময় ‘মায়ের কোল থেকে রাস্তায় পরে যায় একটি শিশু’, সাথে সাথে একটি ট্রাক শিশুটির মাথার উপর দিয়ে চলে যায়।এদিকে এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই, জুগিয়ায় ট্রাকের ধাক্কায় রোজিনা (৩০) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। আজ কুষ্টিয়া-ভেড়ামারা মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

এ সময় গুরুতর আহত হন মোটরসাইকেল চালক ওয়াহেদ। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। নিহত রোজিনা বারখাদা পল্লী বিদ্যুৎ এলাকার মিন্টুর স্ত্রী।

জানা যায়, সকাল ১০টার দিকে সদর উপজেলার জুগিয়ায় একটি ট্রাক পেছন থেকে রোজিনা ও একটি মটরসাইকেল কে ধাক্কায় দেয়। এসময় সে ঘটনাস্থলেই রোজিনা মারা যান। গুরুতর আহত অবস্থায় মোটরসাইকেল চালক ওয়াহেদ কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তার শারীরিক অবস্থা খুবই গুরুত্বর বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছে। সম্পর্কে তারা দেবর ভাবি বলে জানা গেছে।

এদিকে এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ভারি, মধ্যম, হালকা ও ক্ষুদ্র শ্রেণির হাজার হাজার যানবাহন চলাচল করে। সড়কটি কুষ্টিয়া শহরের উপর দিয়ে ঝিনাইদহ-খুলনা এবং ভেড়ামারা হয়ে পাবনা যায়। বর্ষা মৌসুমের সময় বৃষ্টিতে রাস্তার ছোট ছোট গর্তে পানি আটকে তা খানা-খন্দে রুপ নেয়। দীর্ঘ ছয় মাসের বেশি সময় ধরে সড়কটির ব্যবহার অনুপযোগি হয়ে উঠেছে।

ফলে যানবাহন চলাচলের পাশাপাশি বেড়ে চলেছে মৃত্যু ঝুঁকি। প্রতিনিয়ত মানুষও যাতায়াত করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে। চলাচলে হেরফের হলে, যানবাহন হুমড়ি খেয়ে পড়ে সড়কের ওপরেই।

ট্রাফিক পুলিশের এক সদস্য বলেন, ‘জেলার মহাসড়কে খানা-খন্দ থাকায় মোটরসাইকেল, বাস-ট্রাকের দুর্ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে। অনেক সময় চালকদের কিছু করার থাকছে না। কারণ রাস্তায় এতো গর্ত আর ধূলাবালি যে দুর্ঘটনা নিত্য ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।’

Loading...

আরো খবর »