জয়পুরহাট-২ আসন: আ.লীগ, বিএনপি ও জাপা’র একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

জয়পুরহাট থেকে মিজানুর রহমান মিন্টু: কালাই, ক্ষেতলাল ও আক্কেলপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত  জয়পুরহাট-২ আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ অন্যান্য দল থেকে এবার কারা সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন তুলবেন, আবার মনোনয়ন পাবেন কে বা কারা তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলছে জল্পনা-কল্পনা। এ আসনটি ১৯৯১ সাল থেকে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অর্থাৎ পঞ্চম থেকে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপির দখলে ছিল।

মনোনয়ন প্রত্যাশী, দলীয় নেতা-কর্মী, সমর্থক ও সাধারণ জনগণের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বড় দলগুলোর মধ্যে জয়পুরহাট-২ আসনে এবার আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাপা’র একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে।

বিএনপি জোট দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করায় এ আসনটিতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল-মাহমুদ স্বপন মহাজোটের একক প্রার্থী হিসাবে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে আ.লীগ থেকে তিনিই এ আসনের শক্তিশালী প্রার্থী হিসবে ঘোষনা দিয়ে সভা-সমাবেশ. গন সংযোগসহ গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করছেন। এ ছাড়া জয়পুরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম সোলায়মান আলী, কালাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌরসভার বর্তমান মেয়র খন্দকার হালিমুল আলম জন, সাবেক ক্ষেতলাল উপজেলা চেয়ারম্যান ও ক্ষেতলাল উপজেলা আ:লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তাইফুল ইসলাম তালুকদার এবং কালাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক তৌফিকুল ইসলাম তালুদার বেলাল দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশি বলে জানান।

এদিকে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশিদের মধ্যে জেলা বিএনপি’র  সিনিয়ার সহ সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তফা, জেলা বিএনপির অপর দুই সহ-সভাপতি যথাক্রমে রওনকুল ইসলাম টিপু চৌধুরী ও  কামরুজ্জামান কমল, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আলী হাসান মুক্তা, সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন সিরাজুল ইসলাম বিদ্যুৎ, আক্কেলপুর উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইফতেখার আহমেদ আরিফ রানা, কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সদস্য চন্দন রহমান, কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতা নুর মোহাম্মদ রুবেল ও কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য ফজলে কাদের সোহেল বিএনপি থেকে মনোনয়ন চাইতে পারেন বলে তারা জানান।

এ ছাড়া জাতীয় পার্টির থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশিদের মধ্যে সাবেক ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের ছাত্র সমাজের সভাপতি ও কেন্দীয় ছাত্র সমাজের সাধারন সম্পাদক, বর্তমানে  জাতীয পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আবুল কাশেম রিপন, জেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি মুনছুর রহমান, জেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি নূরুল্লাহ্ মাসুম ও কালাই উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি এনামূল কবির দলের কাছ থেকে প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন পেতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবেন বলে তারা জানান।

অপরদিকে জেলা জাসদের সভাপতি আবুল খায়ের মোঃ সাখাওয়ান হোসেন জানান, আগামী জাতীয় নির্বাচনে দলযদি জোটের সাথে থাকে তাহলে তিনি জোটের প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন চাইবেন অথবা জাসদ একক ভাবে নির্বাচন করলে তিনি এ আসনে জাসদের একমাত্র প্রার্থী হবেন বলে জানান।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড. সামছুল আলম দুদু, জেলা বিএনপি’র সভাপতি মোজাহার আলী প্রধান ও জেলা জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক আ.স.ম মোক্তাদির তিতাস মোস্তফা  দলের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশিদের ব্যাপারে প্রায় একই মন্তব্য করে জানান, দলের নেতাকর্মী হিসেবে যে কেউ মনোনয়ন চাইতেই পারেন। তবে দলের কেন্দ্রীয় কমিটি যাকে মনোয়ন দিবে দলে থাকতে হলে সবাইকে মনোনীত প্রার্থীর পক্ষেই নির্বাচন করতে হবে।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »