অভিনব কায়দায় বাল্য বিবাহের প্রস্তুতি নেওয়ার অপরাধে জেল

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঝিনাইগাতী থেকে মুহাম্মদ আবু হেলাল: অভিনব কায়দায় বাল্য বিবাহকে বৈধ করতে ভ্রাম্যমান আদালতের সন্মুখে দাদা সাজলেন পিতা, দাদী হলেন মা, খালা সাজলেন কনে। এ অবস্থায় সঙ্গীয় পুলিশ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম বিব্রতকর অবস্থায়  পড়ে যান। সুযোগ বুঝে আসল বর ও কনে সটকে পড়ে। সুদক্ষ ইউএনও ফারহানা করিম বিচক্ষনতার সহিত প্রকৃত ঘটনা উদ্ধার করতে সক্ষম হলে কনে পক্ষের সাজানো নাটক ভেস্তে যায়। আটক করা হয় ওই তিন ব্যক্তিকে।

এ চমকপদ ঘটনাটি ঘটেছে শেরপুরের সীমান্তবর্তী ঝিনাইগাতী উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নের উত্তর দাড়িয়াপাড় গ্রামে। আটককৃতরা হলেন, মৃত আবুল হাসেমের ছেলে জমশের আলী ওরফে ফালু মেম্বার(৫৫), জমশের আলী ওরফে ফালু মেম্বারের মেয়ে কনেরুপী নিপা(২০) ও লাল ফকিরের স্ত্রী এবং কনের আসল মা শাহানা বেগম(৩৫)। ভ্রাম্যমান আদালত সুত্রে জানা যায়, রবিবার সন্ধার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইউএনও ফারহানা করিম এসআই নিরηন পাল ও সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছলে কনের বাড়ীর লোকজন বাল্য বিবাহের বিষয়টি সম্পূর্ণ গোপন রেখে অভিনব কায়দায় সাবেক ইউপি সদস্য ফালু মেম্বারের সহযোগীতায় নাটক তৈরী করে তৎক্ষনাৎ দাদা সাজলেন পিতা, দাদী হলেন মা, খালা সাজলেন কনে।

তাদের এ নাটকটি ইউএনও নিজেই উ˜্ঘাটন করে ওই ৩ব্যক্তিকে আটক করে তাহার কার্যালয়ে নিয়ে এসে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে প্যানেল কোড ১৮৬০এর দন্ডবিধি আইনের ১৮৬ ধারা মোতাবেক নিপাকে ও শাহানাকে ৫শত টাকা করে ১হাজার টাকা অর্থদন্ড ও মোচলেকা নিয়ে ছেড়ে দিলেও এ নাটকের মূল হোতা ফালু মেম্বারকে ১মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে ঝিনাইগাতী থানার এসআই মোঃ কামাল হোসেনের কাছে হস্তান্তর করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ধানশাইল ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, ঝিনাইগাতী প্রেসক্লাবের সভাপতি এম খলিলুর রহমানসহ অন্যান্য সাংবাদিক ও ইউপি সদস্যগণ।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »