মা-ভাইকে পিটিয়ে কিশোরীকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

সুনামগঞ্জ: জেলার তাহিরপুর উপজেলায় মা ও ভাইকে পিটিয়ে এক কিশোরীকে অপহরণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় দুই যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার রাতে সুনামগঞ্জ শহরতলির আবদুর জহুর সেতুর ওপর এ ঘটনা ঘটে।

পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে সুনামগঞ্জ সদর থানায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ওই কিশোরীর বড় ভাই।

আটক দুই যুবক হলেন—উপজেলার টেকেরঘাট গ্রামের সাইফুল ইসলাম ও সুনামগঞ্জ শহরের নবীনগরের বাপ্পী রায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই কিশোরীকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করে আসছিল একই এলাকার লাকমা গ্রামের ইমরান মিয়া। এ কারণে ওই কিশোরীকে গতকাল সিলেটে পাঠিয়ে দিচ্ছিল তার পরিবার। খবর পেয়ে ইমরান মোটরসাইকেল নিয়ে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার আবদুর জহুর সেতুর ওপরে গাড়ি থেকে জোর করে ওই কিশোরীকে নামিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ওই কিশোরীর মা ও ভাইকে মারধর করে তারা। তখন ওই কিশোরীর চিৎকার শুনে ট্রাফিক পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন এগিয়ে গেলে ইমরান ও তার সহযোগীরা পালানোর চেষ্টা করে। ঘটনাস্থল থেকেই দুই যুবককে আটক করা হয়।

পুলিশের ভাষ্য, ইমরানের সঙ্গে ওই কিশোরীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তবে তাদের দুজনের ধর্ম আলাদা হওয়ায় বিষয়টি আগেই মিটমাট হয়ে যায়। কিন্তু তারপরও ইমরান ওই কিশোরীকে জোর করত।

এ বিষয়ে সুনামগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদুল্লাহ জানান, ইমরান ওই কিশোরীকে এর আগেও একবার অপহরণ করেছিল বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুজনকে আটক করা হয়েছে। বখাটে ইমরান মিয়াকে ধরতে অভিযান চলছে।

এর আগে গত ১৬ ডিসেম্বর রাত ৮টার দিকে মাদানী মহল্লায় ঘরে ঢুকে স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আক্তার মুন্নীকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় কথিত প্রেমিক ইয়াহিয়া। আহত অবস্থায় মুন্নীকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »