কাশ্মীরে ৩৬ ঘণ্টার বন্দুকযুদ্ধ, নিহত ৮

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারত শাসিত কাশ্মীরে রোববার ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনীর একটি ঘাঁটিতে সন্ত্রাসীরা হামলা চালানোয় দুইপক্ষের মধ্যে শুরু হওয়া বন্দুকযুদ্ধ প্রায় ৩৬ ঘণ্টা পর শেষ হয়েছে।

তিন সন্ত্রাসী অতর্কিতে হামলা শুরু করলে তাদের বিরুদ্ধে পাল্টা হামলা চালায় ভারতীয় সেনারা। এই বন্দুকযুদ্ধে ভারতের পাঁচ সেনা ও তিন হামলাকারীর সবাই নিহত হয়েছেন।

আলজাজিরা অনলাইনের এক খবরে মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কর্মকর্তাদের তথ্যানুযায়ী, রোববার সকালে কাশ্মীরের দক্ষিণাঞ্চলে একটি পুলিশ কমান্ডো প্রশিক্ষণকেন্দ্রের কাছে আধাসামিরক বাহিনীর লেথপোরা ঘাঁটিতে অতর্কিতে ঢুকে পড়ে গুলি চালাতে শুরু করে তিন সন্ত্রাসী। এরপর ওই ঘাঁটিতে পুলিশ, সেনাবাহিনী ও আধাসামরিক বাহিনীর কয়েকশ সদস্য ছুটে গিয়ে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযানে অংশ নেয়। শেষ সন্ত্রাসী নিহত হওয়া পর্যন্ত গোলাগুলি চলতে থাকে।

আঞ্চলিক পুলিশের প্রধান শেশ পল বাইড আলজাজিরাকে জানিয়েছেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তৃতীয় হামলাকারীর মরদেহ খুঁজে পাওয়ার পর সোমবার বিকেলে ৩৬ ঘণ্টার এই ম্যারাথন অভিযান শেষ হয়েছে।

তিন হামলাকারীর মধ্যে একজন বিদেশি এবং দুজন পার্শ্ববর্তী গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা। গত সাত বছরের মধ্যে স্থানীয় কাশ্মীরিদের চালানো এ ধরনের প্রথম হামলা এটি। ভারতীয় সেনাবাহিনী ও আধাসামিরক বাহিনীর ঘাঁটিতে এ ধরনের হামলা সাধারণত আত্মঘাতী হামলার শামিল। এ ক্ষেত্রে সাধারণত সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা মৃত্যু না পাওয়া পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যায়। একে ‘ফিদাইন হামলা’ বলে।

পাকিস্তানের সন্ত্রাসী সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বা ও জাইশ-ই-মোহাম্মদ কাশ্মীরে ভারতীয় সেনাদের ঘাঁটিতে ফিদাইন হামলা চালিয়ে থাকে। লেথপোরা ঘাঁটির হামলার দায় স্বীকার করেছে জইশ-ই-মোহাম্মদ।

নিহত স্থানীয় দুই সন্ত্রাসী ১৬ বছর বয়সি ফারদিন আহমদ খানদায় ও ২৪ বছর বয়সি মানজুর আহমদ বালা কাশ্মীরের দক্ষিণাঞ্চলীয় পুলওয়ামা জেলার বাসিন্দা। সোমবার তাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। এতে কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেয়।

১৯৮৯ সাল থেকে কাশ্মীরে ভারতের শাসনের বিরুদ্ধে এবং কাশ্মীরের স্বাধীনতার দাবিতে বিদ্রোহীরা লড়াই করছে। ভারতের দৃষ্টিতে তারা বিচ্ছিন্নতাবাদী হলেও কাশ্মীরে দিন দিন স্বাধীনতার দাবিই সোচ্চার হচ্ছে। বিদ্রোহী বা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দমনের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যা করা হচ্ছে বলে ভারতের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »