ইবিতে আগামীকাল গ্র্যাজুয়েটদের মিলন মেলা

Feature Image

ইবি প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

এ আর রাশেদ: দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) চতুর্থ সমাবর্তন। দীর্ঘ ১৬ বছর পর আগামীকাল (৭জানুয়ারি) রোববার নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠিত হবে এ সমাবর্তন অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠেয় এ সমাবর্তবনে সভাপতিত্ব করবেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এছাড়া সমাবর্তনে আরো উপস্থিত থাকবেন বিশ্ববিদ্যালয় মুঞ্জরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান এবং সমাবর্তন বক্তা হিসেবে অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল।

এবারের সমাবর্তনে প্রায় ১০ হাজার গ্র্যাজুয়েট ও পোষ্ট গ্র্যাজুয়েটদের সনদ দেয়া হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক শাখা সূত্রে জানা গেছে।

সমাবর্তনে যোগ দিতে এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে পোস্ট গ্র্যাজুযেট ও গ্র্যাজুয়েটদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীদের পদচারনায় পুরো ক্যাম্পাস মিলন মেলায় পরিনত হয়েছে। এছাড়া দীর্ঘদিন পরে সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হওয়ায় শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে  স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করা শিক্ষার্থী রাসেল মাহমুদ বলেন, ‘দীর্ঘ দিন ধরে অপেক্ষায় ছিলাম যে কবে সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে। অবশেষে সমাবর্তনে এসে পুরনো দিনের সেই বন্ধু বা বান্ধবীদের সঙ্গে আবার দেখা করতে পেরে খুবই ভাল লাগছে।’

এদিকে সমাবর্তন উপলক্ষে এরই মধ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। প্রায় দশ হাজার শিক্ষার্থীকে বরণ করে নিতে এরই মধ্যে নবসাজে সজ্জিত করা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়।

এছাড়া সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের আগমন উপলক্ষে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে পুরো ক্যাম্পাস। ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সহ বিভিন্ন স্থাপনা ও প্রধান প্রধান সড়কে বসানো হয়েছে উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন সিসি ক্যামেরা।

এ বিষয়ে চতুর্থ সমাবর্তনে আইন শৃংখলা ও নিরাপত্তা উপ-কমিটির দায়িত্বে থাকা প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বলেন, ‘সমাবর্তনে মহামান্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের আগমন উপলক্ষে ক্যাম্পাস ও তার পার্শবর্তী এলাকা নিরাপত্তা চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭৫ একর ও পার্শ্ববর্তী এলাকা সার্বক্ষণিক নজরদারি করছে এনএসআই, ডিএসবি, র‌্যাব, পুলিশ ও সাদা পোশাকধারী পুলিশের সদস্যরা।’

জানা যায়, ১৯৭৯ সালের ২২ নভেম্বর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) প্রতিষ্ঠত হওয়ার ৩৮ বছরে তিনটি সমাবর্তন অনুষ্টিত হয়েছে। প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৩ সালের ২৭ এপ্রিল, দ্বিতীয় সমাবর্তন ১৯৯৯ সালের ৫ ডিসেম্বর এবং এর তিন বছর পর ২০০২ সালের ২৮ মার্চ অনুষ্ঠিত হয় তৃতীয় ও সর্বশেষ সমাবর্তন।পরবর্তীতে দীর্ঘ দেড়যুগ অতিবাহিত হলেও দেখা পায়নি কাঙ্খিত সমাবর্তনের। অবষেশে ১৬ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে চতুর্থ সমাবর্তন। তাই অন্যন্য বছরের তুলনায় এ বছরের সমাবর্তনকে কেন্দ্র করে নেয়া হয়েছে বাড়তি আয়োজন।

সমাবর্তনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘চতুর্থ সমাবর্তনের জন্য প্রস্তুত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। দায়িত্বরত সকল উপ-কমিটির সদস্যগণ তাদের কাজ সম্পন্ন করেছে। আশা করছি খুব সুন্দরভাবে এবং নিরাপদে আমরা চতুর্থ সমাবর্তন সম্পন্ন করতে পারবো।’

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »