জেএসসি-জেডিসির ফলাফল পুনঃনিরীক্ষায় লক্ষাধিক আবেদন

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফলাফলে অসন্তোষ লক্ষাধিক পরীক্ষার্থী। যার কারণে এবার বিভিন্ন বিষয়ের খাতা পুনঃনিরীক্ষার আবেদন জমা পড়েছে সবচেয়ে বেশি। পুনঃনিরীক্ষণে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষার্থীরা বেশি আবেদন করেছে। বিষয়ভিত্তিক আবেদনের র্শীষে রয়েছে গণিত ও ইংরেজি। বিষয়ভিত্তিক ৭৮ বা ৭৯ নম্বর পেয়েও কয়েজ হাজার পরীক্ষার্থী আবেদন করেছে। বিভিন্ন শিক্ষাবোর্ড সূত্রে এমন তথ্যই জানা গেছে।

অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীদের ধারণা পুনঃনিরীক্ষণে এক বা দুই নম্বর বাড়লেই ফেল থেকে পাস করবেন। আবার অনেকে জিপিএ-৫ বা সব বিষয়ে জিপিএ-৫ পাবেন। তবে বোর্ড কর্মকর্তাদের দাবি সব বিষয়ে নম্বর দেখার সুযোগ করে দেয়ার কারণেই আবেদনের সংখ্যা বেড়েছে। তবে বিষয় প্রতি পরীক্ষার্থীদের ১২৫ টাকা করে ফি দিতে হয়েছে। এতে বোর্ডগুলোর অন্তত সোয়া দুই কোটি টাকা বাড়তি আয় হয়েছে।

সূত্র জানায়, জেএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল পুনরায় মূল্যায়নে ঢাকা বোর্ডে ৩৭ হাজার পরীক্ষার্থীর ৭৮ হাজার ৪০০ আবেদন জমা পড়েছে। আবেদনের শীর্ষে রয়েছে গণিত ও ইংরেজি বিষয়। কুমিল্লা বোর্ডে ১২ হাজার ১৮৮ পরীক্ষার্থী ২৪ হাজার ৪০৪টি আবেদন করেছে। এর মধ্যে ইংরেজিতে ছয় হাজার ১৩৩টি ও গণিতে তিন হাজার ১৮৩টি। রাজশাহী বোর্ডে ৪ হাজার ৫৬৩ পরীক্ষার্থী ৮ হাজার ৯০২টি আবেদন করেছে। এ বোর্ডে ইংরেজিতে এক হাজার ৬৫৯টি আবেদন জমা পড়েছে। যশোর বোর্ডে ৯ হাজার ৪০৮ পরীক্ষার্থী ১৬ হাজার ৩৭০টিতে আবেদন করেছে। এর মধ্যে গণিতে তিন হাজার ৪৩৬টি আবেদন। চট্টগ্রাম বোর্ডে ১০ হাজার ৫৩১ পরীক্ষার্থী ২০ হাজার ৫২১টিতে আবেদন করেছে। এ বোর্ডেও গণিতে সর্বোচ্চ আবেদন। এ সংখ্যা চার হাজার ৫৫টি। সিলেট বোর্ডে তিন হাজার ২৪৭ পরীক্ষার্থী ছয় হাজার ৪৭৬টি আবেদন করেছে। এর মধ্যে গণিতে এক হাজার ১৯০টি আবেদন। দিনাজপুর বোর্ডে ছয় হাজার ৭৩৮জন পরীক্ষার্থী ১২ হাজার ২৭৪টিতে আবেদন করেছে। সব মিলিয়ে চ্যালেঞ্জ করা শিক্ষার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ তিন হাজার ৭০৫ জনে।

অন্যান্য বোর্ডে গণিত ও ইংরেজিতে আবেদনের সংখ্যা বেশি হলেও দিনাজপুর বোর্ডে ঘটেছে উল্টো। এ বোর্ডে সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ে সর্বোচ্চ আবেদন। এ সংখ্যা দুই হাজার ২৬৪টি। বরিশাল বোর্ডে ছয় হাজার ২১৪ জন আবদেন করেছে। এ বোর্ডে আবেদনের শীর্ষে গণিত।

মাদরাসা বোর্ডের অধীন জেডিসিতে ১৩ হাজার ৮২০ পরীক্ষার্থী আবেদন করেছে। এ বোর্ডে গণিত ও আরবি বিষয়ে আবেদনের সংখ্যা বেশি। বরিশাল ও মাদরাসা বোর্ডে বিষয়ভিত্তিক আবেদনের সংখ্যা জানা যায়নি। তবে অন্য বোর্ডগুলোতে সব মিলিয়ে এক লাখ ৬৭ হাজার ৩৪৭টি আবেদন জমা হয়েছে।

ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপুন কুমার সরকার  বলেন, যারা প্রত্যাশা অনুযায়ী জিপিএ-৫ পায়নি বা ফেল করেছে তারাই আবেদন করেছে। বিগত বছরের তুলনায় ঢাকা বোর্ডে আবেদনের সংখ্যা বেশি নয়।

তিনি আরও বলেন, প্রথা অনুযায়ী ফল প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যে পুনঃনিরীক্ষণের ফলাফল প্রকাশিত হয়। সে অনুযায়ী আগামী ২৯ জানুয়ারির মধ্যে পুনঃনিরীক্ষণের ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ ডিসেম্বর জেএসসি ও জেডিসির ফলাফল প্রকাশিত হয়। উভয় পরীক্ষার ফলাফলের সবগুলো সূচকেই গতবারের তুলনায় খারাপ হয়েছে। দুই পরীক্ষায় ২৪ লাখ ৮২ হাজার ৩৪২ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ নেয়। গড় পাসের হার ৮৩ দশমিক ৬৫ ভাগ। গত বছর ছিল ৯৩ দশমিক শূন্য ছয় ভাগ। কমেছে ৯ দশমিক ৪১ ভাগ।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »