সোনামসজিদ সীমান্তে আটক বৃহদাকার ৯ উট চিড়িয়াখানায় পাঠানোর দাবী

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে জাকির হোসেন পিংকু:  চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার সোনামসজিদ ও শিয়ালমারা সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে চোরাচালান হয়ে আসার পথে আটক বৃহদাকার ৯টি উট চিড়িয়াখানায় পাঠানোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। গত ১২ জানুয়ারী শুক্রবার ভোরে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫৯’বিজিবি ব্যাটালিয়নের সোনামসজিদ ও শিয়ালমারা বিওপি দুটি পৃথক অভিযানে ৬টি ও ৩টি মোট ৯টি উট আটকের পর দুপুরে শিবগঞ্জ কাস্টমস শুল্ক গুদামে জমা দেয়।

এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানায় ৯জন ও ৮ জনকে সনাক্ত করে পলাতক আসামী দেখিয়ে পৃথক ২টি মামলা দায়ের হয়। বিজিবি ৫৯ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে.কর্ণেল রাশেদ আলী জানান, ৯টি উটের সিজার মুল্য করা হয়েছিল ৪৫ লক্ষ টাকা। শিবগঞ্জ শুল্ক গুদাম কর্তৃপক্ষ এই ৯ টি উট নিলামের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বলে জানান কাস্টমস্ পরিদর্শক আলমগীর হোসেন। এদিকে এলাকাবাসী জানান, দেশের বড় কয়েকটি চিড়িয়াখানায় এমনকি উট নেই দর্শনার্থীদের বিনোদনের জন্য। আটক উট নিলামে বিক্রি করা হলে এগুলো ব্যাক্তি পর্যায়ে চলে যাবে ও অনেক উচ্চ মূল্যে বিক্রি হবে। নিলামে যোগসাজসে দূর্ণীতিরও সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে সরকার প্রকৃত রাজস্ব হারানোর পাশাপাশি চিড়িয়াখানার দর্শনার্থীরাও বঞ্চিত হবেন।

এলাকাবাসী গোলাম মোর্তুজা,আব্দুস সালাম,মোজাফ্ফর হোসেন,টিটো ও আব্দুল মালেক জানান, শিবগঞ্জ কাস্টমস্ এ থাকা ৯ টি উট অনেক বড় ব। এর আগে এতোবড় উট দেখিনি,উট দেখতে শুক্রবার থেকে রোববার রাত পর্যন্ত হাজার হাজার মানুষ শুল্ক গুদামে এসেছে। আনন্দ পাচ্ছে সবাই। উট দেখতে আসা শিবগঞ্জের সাহাপাড়া গ্রামের মরিয়ম বেগম জানান,২০ কিলোমিটার দূর থেকে ১শ’ টাকা খরচ করে বাচ্চাদের সাথে করে উট দেখার জন্য এসেছি। দর্শনার্থীরা বলেন, উটগুলো নিলাম না করে চিড়িয়াখানায় দেয়া হোক। শিবগঞ্জ কাস্টমস্ শুল্ক গুদামের আলমগীর হোসেন রোববার সন্ধ্যায় জানান, উটগুলি নিলামের জন্য আদালতের আদেশের জন্য সকালে শুনানী হয়েছে। আদেশ অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে। এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও উটগুলি নিলামের বিরোধীতা করে চিড়িয়াখানায় দেয়ার জোর দাবী জানিয়েছে অনেকেই।

একটি সুত্রে জানা গেছে, ঢাকাস্থ জাতীয় চিড়িয়াখানা, রাজশাহী চিড়িয়াখানা,বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষন বিভাগ,রাজশাহী এবং সরকারের উর্ধতণ কর্তৃপক্ষের গোচরে গেছে বিষয়টি। এ ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সাথেও আলাপের চিন্তা করছেন কেউ কেউ।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »