রাষ্ট্রপক্ষ আপিলে গেল না কেন?

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: ঢাকার সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের ‘নীরবতাই’ তাদের ‘যোগসাজশের’ প্রমাণ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, সরকার যদি সত্যিই নির্বাচন চাইত, তাহলে হাই কোর্টের স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে যেত।

“তাহলে হাই কোর্টের আদেশ স্থগিত হয়ে যেত এবং নির্বাচন হয়ে যেত। এখন তারা হাত-পা গুটিয়ে ফেলেছেন। এমন একটা ভাব, যে এই স্থগিতাদেশ একটা স্থায়ী বিষয়ে, এর বিরুদ্ধে যেন আপিল করা যায় না।”

মওদুদ বলেন, “এটাই প্রমাণ করে, সরকার ও নির্বাচন কমিশনের যোগসাজশে এই নির্বাচন স্থগিত হয়েছে।… আমার বলতে হবে, তারা একই পথের যাত্রী এই ব্যাপারে। তারা হেরে যাবেন বলেই এ কাজগুলো করেছেন।”

ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং দুই সিটিতে নতুন যুক্ত হওয়া ৩৬টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর নির্বাচনের জন্য ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন ঠিক করে তফসিল দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন।

কিন্তু বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই ইউপি চেয়ারম্যানের রিট আবেদনে গত বুধবার হাই কোর্ট উত্তরের ভোট স্থগিত করে দেয়। এরপর বৃহস্পতিবার দক্ষিণের নির্বাচনের ওপরও আদালতের স্থগিতাদেশ আসে এক ভোটারের রিট আবেদনের কারণে।

এসব রিট আবেদনের অভিযোগ ছিল, নির্বাচন কমিশনের তফসিলে ১৮ জানুয়ারির মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দিতে বলা হলেও এখনও পর্যন্ত তারা চূড়ান্ত ভোটার তালিকাই প্রকাশ করেনি।

বিএনপি সেদিনই অভিযোগ তোলে, ঢাকার সিটি নির্বাচন স্থগিত হয়েছে ‘সরকারের ইঙ্গিতে’। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়, আদালতের আদেশের পেছনে সরকারের কোনো ভূমিকা নেই।

হাই কোর্টের ওই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে কি না- সে বিষয়ে স্পষ্ট কিছু জানায়নি নির্বাচন কমিশন। ইসির আইনজীবী শুধু বলেছেন, কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বিএনপির ২০০১-০৬ মেয়াদের সরকারের আইনমন্ত্রী মওদুদ বলেন, সরকার নির্বাচন চাইলে রাষ্ট্রপক্ষ এখনও ‘আপিল’ করতে পারে।

ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “তাহলে আপনারা যান না কেন? আগামী নির্বাচনে কী হতে যাচ্ছে- এটা এখন দেশের মানুষ নিশ্চিই বুঝতে পারছে।”

এক্ষেত্রে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মওদুদ।

 

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »