খালেদাকে নির্বাচনের সুযোগ দেয়া যাবে না: ইনু

Feature Image

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, কারো সাজাকে শর্ত যুক্ত করে নির্বাচনের দরকষাকষি হতে পারে না। অর্ন্তভূক্তির নির্বাচনের নামে খুনের আসামি, হত্যাকারী, দুর্নীতিবাজ নেতা নেত্রীদের হালাল করে না। নির্বাচনের দরজা অপরাধী ছাড়া সবার জন্য খোলা আছে। অর্ন্তভূক্তির নির্বাচন মানে অপরাধীকে অর্ন্তভূক্ত করা নয়। অর্ন্তভূক্তিমূলক নির্বাচনের নামে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ দেয়া যাবে না। সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে আজের বৈঠকে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসবকথা বলেন।

হাসানুল হক ইনু আরো বলেন, নির্বাচন বিএনপির এজেন্ডা নয়। খালেদার সাজার পর জামাতসহ বিশ দল নিয়ে আবার মাঠে নেমেছে তারা। বিএনপির এজেন্ডা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করা। মা-ছেলের দুর্নীতির বিচার বন্ধ করা। মানুষ পোড়ানোর বিচার বন্ধ করা। সুসংগঠিত হত্যাকান্ডের বিচার বন্ধ করা। বিএনপির এজেন্ডা নির্বাচন বন্ধ করে দিয়ে একটি সাম্প্রদায়িক সরকার প্রতিষ্ঠা করা। সেজন্য সহায়ক সরকারের প্রস্তাব মাঠে রাখা হয়েছে। এটি সংবিধানে নেই। সহায়ক সরকারের প্রস্তাবটা নির্বাচন বানচালের একটা উছিলা মাত্র। তার সঙ্গে যোগ হয়েছে খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের সাজা।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে বাংলাদেশের পথে রাখতে হলে, মুক্তিযুদ্ধের পথে রাখতে হলে, কোনো দরকষাকষির নামে অন্তভূক্তির প্রস্তাবে ছাড় না দিয়ে দুর্নীতিবাজদের বিচার অব্যাহত রাখতে হবে। বিএনপি নামক বিষবৃক্ষকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে হবে। এই বিষবৃক্ষে ডালপালা ছেটে নয়, সমূলে উচ্চেদ করতে হবে। তিনি আরো বলেন, বিএনপি আমাদের রাজনীতির বিষবৃক্ষ। সামরিকতন্ত্র, রাজাকারতন্ত্র, সাম্প্রদায়িতকা, হত্যা, খুনের সংমিশ্রণে জিয়াউর রহমান বিএনপি নামের এই বিষবৃক্ষ ৭৫ এর পরে রোপন করেছিলেন। বেগম জিয়া সার-পানি নিয়ে এই বিষ বৃক্ষকে বড় করেছে। তাই এই বিষবৃক্ষ নিয়ে গণতন্ত্রের বাগান সাজানো চলে না। তিনি আরো বলেন, বেগম জিয়া যে মামলায় সাজা ভোগ করছেন সেই মামলা টেনে টেনে ১০টি বছর পার করেছেন। আইনের সব ধরনের সুযোগ সুবিধা উনি গ্রহণ করেছেন। দশ বছর পর সাজা হল, সেই সাজা তড়িঘড়ি আদালতের রায় না।

আরো খবর »