পুরুষ হৃদয় প্রেমে পড়তে চাইছে কোন ধরনের নারীর

Feature Image

সফোক্লেস-এর ‘ইডিপাস রেক্স’ পড়ে নাক সিটকে বিদ্বজ্জনদের শুদ্ধিকরণের বুলি কপচাতে দেখেছি। আবার ফ্রয়েড উগরে দিলে,’বেড়ে পাকা এ প্রজন্ম’ বলে হাতঘুরিয়ে ফ্রয়েডকেও শাপান্ত করে ফেলেন তারা। কিন্তু এ প্রজন্ম যে এই ‘ইডিপাস’ কমপ্লেক্স নিয়ে জন্মেছে বলে জানাচ্ছেন মনোবিদরা। বয়ঃসন্ধির ঠিক শুরুয়াত থেকে একেবারে মধ্যযৌবন অবধি পুরুষ হৃদয় প্রেমে পড়তে চাইছে বয়সে বেশ খানিকটা বড় মহিলার। স্কুলে পিঠখোলা ব্লাউজের ইংলিশ মিসকে দেখে যে দুরুদুরু বক্ষে প্রথম ব্যক্তিগত কলাম পড়া শুরু, সেই আকর্ষণ কলেজের সিনিয়র দিদি থেকে অফিসের বেশি বয়স্ক কলিগ পর্যন্ত। মনোবিদরা বলছেন, চিরকালীন নেকুপুসু থাকতে চাওয়া পুরুষ, এক ছাদের তলায় সব কিছুর মতো প্রেমিকার কাছ থেকেও মমতামাখানো যৌনতার স্বাদ চাইছে। কখনও বা ডারলিং-কভু তুমি জননীর এই হাওয়া বেশ চলতি বলে দাবি মনোবিদদেরই।’সমবয়সী মেয়েরা ভীষণ immatured. আসলে, চারপাশটা তো বড্ড শ্যালো।

সারাদিন ঘেমে কাজ করার পর, ভীষণ অগভীর এই মানুষজনকে কাটিয়ে এমন কারও কোল-স্পর্শ-চুমু পেতে ইচ্ছে করে, যে আমার চোখের ভাষা বুঝবে। আমার বয়সী একটি মেয়ের সেই সেন্সনটাই গ্রো করে না। দাবি-চাহিদা সবমিলিয়ে নাজেহাল করে দেয়। প্রেমিকা বয়সে বড় মানেই,সে আমার এজের প্রবলেমগুলো বুঝবে আর নীরবে সলভ করে দেবে-যেমনটা মা করে দিত।

মোরওভার, রাতটাও তার সঙ্গে ততটাই রোমাঞ্চকর কাটে। কোনও বাড়তি চাপ নেই। যেটা একজন মানুষ চেয়ে আসে। খুব লাইটলি, রাতে মল্লিকা শেরাওয়াত,কিচেনে সঞ্জীব কপূর। আর বয়সে বড়রা অনেক বোঝে, দায়িত্বশীল হয়’-দাবি টিসিএস-এর কর্মী প্রসূন দত্তর (২৯)। সহমত হচ্ছে মিত্র ইনস্টিটিউশনের ক্লাস নাইনের ছাত্র সোহম চন্দও।

‘বিয়ে অবধি জানি না। কারণ সমাজে তো এটা এখনও লোকে অন্যরকম ভাবে দেখে। কিন্তু প্রেমিকা বয়সে বড়ই বেশ ভাল লাগে। মানে আমার প্রথম ক্রাশ আমার ইতিহাস কোচিংয়ের সুদেষ্ণা মিস। আমি যেভাবে ভাবি বা যেভাবে ভাবাতে চাই, সেটা আমার বয়সী মেয়েরা বুঝবে না। তার জন্য গভীরতা প্রয়োজন। আর প্রেমিকা বড় মানে, আমার ইচ্ছে হলে আদর করব। আবার কান্না পেলে সে নিজেই বুঝতে পেরে আমার মাথা টেনে নেবে কোলে’-জানাচ্ছে সোহম। মনোবিদ অনিতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুরোটাইকেই স্বাভাবিক মেনে নিয়ে বলছেন, ‘ছেলেদের একটা নেচার থাকে। প্যাম্পারড হওয়ার। মেয়েদের-ও থাকে,কিন্তু সমাজব্যবস্থা-পরিস্থিতি মেয়েদের সহিষ্ণু হতে শেখায়। ছেলেদের সেটা কম। ফলে ওই ঝামেলা মানেই টিন-এজার থেকে মধ্যবয়স্ক, কোলে-বুকে মাথা গুজে দেওয়ার প্রবণতা। সেক্ষেত্রে প্রেমিকা বয়সে বড় হলে সে সুবিধে বেশি। প্রেমের সঙ্গে এক্সট্রা হল স্নেহ। আর পৃথিবী এত দ্রুত যাচ্ছে যে, ও আমার কেউ নেই মানসিকতা বেশি প্রবল। আমরা দেখছি, মনে মধ্যে ওই চেপে থাকা ইডিপাস কমপ্লেক্স থেকে ছেলেরা বয়সে বড় মহিলাদের প্রতি আকৃষ্ট হয় দ্রুত। ‘দুম করে প্রেমিকের মাথায় একটা চাঁটি কষাবে না। সমবয়সীরা সাবধান। এখানেই যে ওল্ড ইজ গোল্ড। বেশ করে গভীরভাবে গভীরতা খোঁজার চেষ্টা করুন দেখি। সুত্র: ব্লক।

আরো খবর »