তাঁরা ব্রাজিলের সমর্থক, প্রেডিকশন কী?

Feature Image

বাড়ির ছাদে উড়ছে কিংবা বারান্দায় দুলছে সমর্থিত দলের পতাকা। পাড়ায়-মহল্লায়, বন্ধু- আড্ডায় কিংবা চায়ের দোকানে চলছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা নিয়ে বাকবিতণ্ডা। গত ম্যাচে হারার পর আর্জেন্টিনা সমর্থকরা নিশ্চুপ। তাঁদের দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়া প্রায় অনিশ্চিত। আজ ব্রাজিলের ম্যাচ। পরিবারের ভেতরেও উঠছে চায়ের কাপে ঝড়। বাবা মেসি তো সন্তান নেইমার কিংবা বড় সন্তান আর্জেন্টিনার সমর্থক আর ছোটটি ব্রাজিলের। আর্জেন্টিনার হারের পর সবাই তাকিয়ে আছেন ব্রাজিলের ম্যাচের দিকে। ব্রাজিল সমর্থিত তারকারা ম্যাচের আগে কী প্রত্যাশা করছেন? জয়- পরাজয় নিয়ে তাঁদের প্রেডিকশন জানানো হল:

মোশাররফ করিম: আমার ঘরের জন আর্জেন্টিনার সাপোর্টার। আর আমি ব্রাজিল। গত রাতের ম্যাচের পর তো তাঁর সঙ্গে কথাই বলা যাচ্ছে না। আমি ভয়ে আছি আমাদের ম্যাচ নিয়ে। যতটা না ভয়ে আছি ব্রাজিল জিততে পারবে কিনা। তার চেয়ে আতঙ্কে আছি যদি হেরে যাই, আমরাও এমন পচানি খাবো। ঈদ গেল, শুটিং ব্যস্ততা এখনো শুরু হয়নি। রাত জেগে খেলা দেখা হয়। গতকাল ব্রাজিলের ম্যাচ দেখে প্রেডিকশন চেইঞ্জ করে ফেলেছি। আমি ১-০ তে জয় পেলেও খুশি। জয়টাই মুখ্য হয়ে গেছে।

ওমর সানী- মৌসুমি: আমি ও মৌসুমি দুজনেই নিয়মিত খেলা দেখি। বিশেষ করে ব্রাজিলের তো কোন খেলা মিসই যায় না। যখন শুটিংয়ের ব্যস্ততা থাকতো। তখনও নিয়মিত খেলা দেখতাম। শুটিং বন্ধ করে খেলা দেখারও রেকর্ড আছে। এজন্য অনেক সময় অনেকের সঙ্গে রাগারাগি হয়েছে। গত ম্যাচে আর্জেন্টিনা হেরে যাওয়াটা খারাপ লেগেছে। আজকে আমাদের ব্রাজিলের খেলা। খেলা দেখবো উত্তরার একটা রেস্টুরেন্টে। খেলার প্রেডিকশন ২-১ এ জিতবো আমরা।

মোস্তফা সরয়ার ফারুকী: আমার পছন্দের প্লেয়ার যে শুধু ব্রাজিলে আছে তা নয়, আমার পছন্দের প্লেয়ার ব্রাজিল আর্জেন্টিনা সব দলে আছে। গতরাতের ম্যাচে আর্জেন্টিনার গ্যালারির কান্নাও ভালো লাগেনি। আর্জেন্টিনা দলে আমার পছন্দের প্লেয়ার ম্যারাডোনা, মেসি, অববিয়াসলি আনডাউটলি। ব্রাজিলের পছন্দের প্লেয়ারদের মধ্যে সক্রেটিস, আমার খুবই প্রিয় খেলোয়াড় ছিলেন। পেলের খেলা তো আমরা দেখিনি, ইউটিউবে যা দেখেছি সেগুলো দেখে বুঝতে পারি, সে একজন লিজেন্ড ছিলেন। হি অয়াজ অ্যা লিজেন্ট। নেইমার, অবধারিতভাবে খুবই একজন অসাধারণ খেলোয়াড় এবং আমার মনে হয় যে নেইমার লিজেন্ট হওয়ার পথে আছে। আর রোনালদো, রোনালদিনহো। এ দুজনই অসম্ভব বড় মাপের খেলোয়াড়। ম্যাজিশিয়ান। বর্তমানে ব্রাজিল দলটাও খারাপ নয়। এদের থেকে বিশ্বকাপ প্রত্যাশা করতেই পারি। তবে আরও কয়েকটি দেশ আছে যারা বিশ্বকাপের জোর দাবিদার। আজকের ম্যাচে প্রত্যাশা ব্রাজিল ২-০ তে জিতবে।

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব: ব্রাজিলের জার্সি পরে আছি। প্রিয় খেলোয়ার মেসি। তবে প্রিয় দল ব্রাজিল। বন্ধুদের নিয়ে খেলা দেখবো বাসায়। আজকের ম্যঅচের প্রেডিকশন ৩-১ গোলে জয় পাবো আমরা।

বিদ্যা সিনহা মীম: ব্রাজিলের সমর্থক এইটা পুরনো খবর। নতুন খবর অনলাইনে জানালেন তিনি এবার দেশের বাইরে বসে খেলা দেখছেন। ব্রাজিলের ম্যাচগুলো মিস করেন না। বাবাও ব্রাজিলের সমর্থক। আজ ব্রাজিলের ম্যাচ নিয়ে কোন টেনশন নিয়ে। বন্ধুদের সঙ্গে পাঁচ হাজার টাকা জুয়াও ধরা আছে। আজকের ম্যাচে ২-০ গোলে জিতবো। জয়ের ব্যবধান আরও বেশি হতে পারে।

আব্দুল আজিজ: ‘আমি হিমু। হিমু মানেই হলুদ। কিন্তু রূপা! কি হলুদ হিমুর মত ব্রাজিল ? রূপা! রূপা! রূপা! আমি যে ব্রাজিল সমর্থক। এই ক্যাপশন দিয়ে, সেটা ফেসবুকেও জানিয়েছিলাম। হার কিংবা জিত বুঝি না, আমি ব্রাজিলের সমর্থক। গত ম্যাচ ড্র হয়েছিল তা নিয়ে কোন দু:চিন্তা নেই। ছোটদলগুলো ভালো খেলছে সত্যি। কিন্তু কাপ কোন বড়দলই নিবে। আর সেই দৌড়ে সবচেয়ে ব্রাজিলই এগিয়ে আছে।

আজকের ম্যাচে ব্রাজিল কমপক্ষে ৩-০ গোলে জিতবে।

আনিসুর রহমান মিলন: ছোটবেলা থেকেই ব্রাজিলের সমর্থক। আমার কাছে মূল বিষয়টা হচ্ছে সুন্দর ফুটবল দেখাটা। আমি সব সময় দেখেছি ব্রাজিল খুব সুন্দর ফুটবল খেলে। আমরা যেটা দেখতে চাই, ড্রিবলিং করা, সুন্দর গোল করা, সেটা আমার কাছে মনে হয় অন্য যেকোনো দলের থেকে ভালো করে ব্রাজিল। অন্যান্য দলগুলো প্র্যাক্টিক্যাল খেলা খেলে, কিন্তু ব্রাজিল বেশিরভাগ সময়ই আমরা যে ধরনের খেলা দেখতে পছন্দ করি, সে ধরনের খেলা খেলে। আজকের ম্যাচে ব্রাজিল ৩-০ গোলে জয় পাবে।

জেনে নিন কবে কবে খেলা ব্রাজিলের..

এবার প্রথম রাউন্ডে ব্রাজিল খেলছে গ্রুপ ‘ই’ -তে। এ গ্রুপে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ সুইজারল্যান্ড, কোস্টারিকা ও সার্বিয়া। ব্রাজিল বনাম সুইজারল্যান্ডের প্রথম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় ১৭ জুন। খেলাটি ১-১ গোলে ড্র হয়। ব্রাজিল বনাম কোস্টারিকার খেলা আজ ২২ জুন। এটি টিভি পর্দায় দেখা যাবে সন্ধ্যা ৬টায়। আর ব্রাজিল বনাম সার্বিয়ার খেলা ২৭ জুন। টিভিতে প্রচার হবে সে দিন তার ১২টায়। বাংলাদেশের নাগরিক টিভি, মাছরাঙা ও জিটিভিতে খেলা দেখা যাবে।

ব্রাজিলের রেকর্ড

ব্রাজিলের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ফুটবল। ব্রাজিলই একমাত্র দল যারা প্রতিটি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। এ পর্যন্ত তারা মোট পাঁচবার বিশ্বকাপ ট্রফি জিতেছে। ১৯৫৮, ১৯৬২, ১৯৭০, ১৯৯৪ ও ২০০২ সালের আসরে তাঁরা চ্যাম্পিয়ন হয়। ১৯৭০ সালে ব্রাজিল জুলে রিমে ট্রফি স্থায়ীভাবে নিজেদের দখলে নেয়। ব্রাজিল ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের স্বাগতিক দেশ ছিল। গত বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিল জার্মানির সঙ্গে ৭-১ গোলের বিশাল ব্যবধানে পরাজয় বরণ করে।

আরো খবর »