ভিকারুননিসা ছাত্রীর আত্মহত্যা, অধ্যক্ষ অপদস্ত

Feature Image

ঢাকা : শিক্ষকের ‘অপমান’ সইতে না পেরে রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার বিকালে রাজধানীর শান্তিনগরে অদ্রিতি অধিকারী (১৫) নামে নবম শ্রেণির ওই ছাত্রী আত্মহত্যা করেন বলে জানায় পুলিশ।

নিহত অদ্রিতির বাবা বলেন, আমার মেয়ে বারবার ক্ষমা চেয়ে আবেদন জানালেও শিক্ষকরা তার কথা না শুনে উল্টো তাকে কক্ষ থেকে বের করে দেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) পুলিশ ফাঁড়ির সাব ইন্সপেক্টর বাচ্চু মিয়া বলেন, “গতকাল (রবিবার) ফাইনাল পরীক্ষা চলাকালে অদ্রিতির কাছে মোবাইল ফোন পান শিক্ষকরা। পরে আজ (সোমবার) স্কুলের অধ্যক্ষ ওই ছাত্রীর মা-বাবাকে স্কুলে ডেকে পাঠান।”

নিহত অদ্রিতির বাবা দিলিপ অধিকারী জানান, তার মেয়ে পরীক্ষায় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নকল করেছে অভিযোগ করে অধ্যক্ষ ও অন্য শিক্ষকেরা তাদের (মা-বাবা) উপস্থিতিতেই অদ্রিতিকে অপমান করে এবং তাদের মঙ্গলবারের মধ্যে স্কুল থেকে ছাড়পত্র (টিসি) নিয়ে যেতে বলা হয়।

তিনি আরও বলেন, “আমার মেয়ে বারবার ক্ষমা চেয়ে আবেদন জানালেও শিক্ষকরা তার কথা না শুনে উল্টো তাকে কক্ষ থেকে বের করে দেন।”

পরবর্তীতে তাদের (বাবা-মা) বাসায় যাওয়ার পূর্বেই অদ্রিতি দ্রুত বাসায় গিয়ে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করে।

বাসায় মেয়েকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে দ্রুত তাকে নামিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক অদ্রিতিকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

ঘটনার প্রেক্ষিতে ভিকারুননিসা অধ্যক্ষের উপর চড়াও হোন অভিভাবক ও সাধারণ জনগণ। এসময় তাকে ‘কিল-ঘুষি’ দেয়ার কথাও জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

আরো খবর »