মায়ের সহায়তায় সেই ভিডিও বানান রোদসী

Feature Image

নিউজ ডেস্ক : ভিডিও বানানোর অ্যাপস টিকটক ব্যবহার করে শখ করেই বানিয়েছিলেন একটি ভিডিও। এরপর সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে যায়।
‘খুশিতে ঠেলায় ঘোরতে…’ নামের এই ভিডিও এরপর বিভিন্ন মাধ্যমে দেখেছেন লাখ লাখ মানুষ। ভিডিওর সেই সংলাপ সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ট্রেন্ডি’ হয়ে যায়। সেই ভিডিওর প্রকাশ্য ও নেপথ্যে যিনি রয়েছেন তার নাম রোদসী। পুরো নাম আর্শিয়া সিদ্দিকা রোদসী। যিনি টুকটাক মডেলিং এর সাথেও জড়িত।

রোদসী পড়াশোনা করছেন ইংরেজি সাহিত্যে, রাজধানীর উত্তরা ইউনিভার্সিটিতে। কখনো ভাবতে পারেননি শখের বশে বানানো এই ভিডিও এতোটা আলোচনায় উঠে বাসবে, দেশ বিদেশের গণমাধ্যমে উঠে আসবে। রোদসীর ফেসবুকে প্রকাশ করা ভিডিওটির মূল কথাগুলো ২০১৪ সালের নির্বাচনের সময় মাই টিভির সাংবাদিক মাহবুব সৈকতের সঙ্গে নির্বাচনের মাঠে ভোটারদের সঙ্গে কথোপকথন থেকে নেওয়া। সে সময়ই সাংবাদিক মাহবুব সৈকত ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফরমে আপ্লোড করা হয়।
কিন্তু সেসময় ভিডিওটি নিয়ে কথা হয়নি। রোদসী ভিডিও বানানোর পর সেটা আলোচনায় চলে আসে।

ভিডিও বানানো সম্পর্কে রোদসী জানান, ৩১ ডিসেম্বর রাতে নিজেদের বাসায় টিকটক ভিডিও বানানোর চিন্তা মাথায় আসে। এরপর অ্যাপস ঘেটে নির্বাচনের ওই সংলাপ সম্পর্কিত টিকটক পছন্দ করেন। পাশে ছিলেন ছোটবোন আশনা সিদ্দিকী। এখানেই শেষ নয়, রোদসী ও আশনার মা রোকেয়া সিদ্দিকা নীলা এই ভিডিও বানাতে বিশেষ সহায়তা করেন । মাইক্রোফোনের আদলে মেকআপের ব্রাশটি তুলে ধরেছিলেন তাদের মা, আর ভিডিওটিও ধারণ করেন তিনি। এরপর সেটি ফেসবুকে পোস্ট করা হয়।

রোদসী ২০১৬ সালের দিকে একটি টিভি বিজ্ঞাপন ককরেন ওয়ালটন এলইডি লাইট, রেইনবো পেইন্টসহ আরও বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপন করেছেন। এছাড়াও । মডেলিং করেছেন সংগীতশিল্পী ইমরানের ‘মন খারাপের দেশে’ ও ‘ভাসি-ডুবি’ শিরোনামে দুটি মিউজিক ভিডিওতে। চ্যানেল আইয়ের ‘সাত ভাই চম্পা’ ধারাবাহিকেও অভিনয় করেছেন। তারপরেও অভিনয় ও মডেলিংকে পেশা হিসেবে নিতে অনিচ্ছুক রোদসী।

আরো খবর »