নাগরপুরে ভয়াবহ আগুনে ১২ লক্ষ টাকার মালামল পুড়ে ছাই

Feature Image

মানিকগঞ্জ থেকে জালাল উদ্দিন ভিকুঃ  মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার সীমানায় শনিবার রাত ২ টার দিকে নাগরপুর উপজেলার চাষা ভাদ্রা ডাক্তার বাড়ির মোড়ে বন বিভাগের অবসর প্রাপ্ত গার্ড মো: কামাল উদ্দিন সরদার বাড়িতে ভয়াবহ আগুন লেগে নগদ ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা,ফ্রিজ,টেলিভিশন,স্বর্ণলংকার,আলমারী,খাট,সুকেস,ড্রেসিং টেবিল,কাপড়-চোপড়,ধান চাল ও পাশে তার একটি ভাড়াটের ওষুধের দোকান সহ প্রায় ১০/১২ লক্ষ টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে ।

 

এবিষয়ে বাড়ির মালিক বন বিভাগের অবসর প্রাপ্ত গার্ড মো: কামাল উদ্দিন সরদার জানান- শনিবার রাত ২ টার দিকে আমি ও আমার স্ত্রী ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় হঠাৎ ঘরের বাহিরে চার দিকে আগুনের লেলিহান দেখতে পেয়ে ঘর থেকে কান্না-কাটি চিৎকার দিয়ে বেড়িয়ে আসি । পরে পানির মটর চালানোর চেস্টা করি পরে দেখি মটরের বিদ্যুতের লাইন বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে । ঘরের পিছনে পানি আনতে গেলে আতোয়ার হোসেনকে দৌড়ে পালিয়ে যেতে দেখে পিছু নিয়ে ধাওয়া দিয়ে ধরার চেস্টা করি ধরতে পারিনি । ধারনা করা হচ্ছে কিছু দিন পুর্বে ঘর ভাড়া দেওয়া নিয়ে আতোয়ারের সাথে মারপিটের ঘটনা জের ধরে পরিকল্পিত ভাবে পেট্্েরাল ঢেলে দিয়ে ঘরে আগুন ধরিয়ে আমাকে ও আমার স্ত্রীকে হত্যার চেস্টা করে। কিন্তু আল্লাহর রহমতে বেচে আছি ।

 

আগুনে ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা ,ফ্রিজ,টেলিভিশন,স্বর্ণলংকার, আলমারী,খাট,সুকেস,ড্রেসিং টেবিল,কাপড়-চোপড়,ধান চাল ও পাশে তার একটি ভাড়াটের ওষধের দোকান সহ প্রায় ১০/১২ লক্ষ টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে । আগুনের ভয়াবহতার বেশি থাকায় কোন মানুষ চাপতে পারেনি ।

এদিকে আতোয়ারের সাথে কথা বলার জন্য বিভিন্ন উপায়ে যোগাযোগের চেস্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি ।
এদিকে ঘিওর ও নাগরপুর উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের দ্ইুটি ইউনিট আসার আগেই ঘর ও মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায় ।ঘিওর ফায়ার সার্ভিসের গ্রæপ লিডার মো: শহিদুর রহমান জানান-খবর পাওয়ার সাথে সাথে ঘটনা স্থলে পৌছানোর আগেই সর্ম্পূন পুড়ে যায় । প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে বিদ্যুতের সর্ট সার্কিটের কারনে আগুনের সুত্রপাত হতে পারে । এদিকে বাড়ির মালিক রবিবার সন্ধা ৭ টায় বন বিভাগের অবসর প্রাপ্ত গার্ড মো: কামাল উদ্দিন সরদার জানান- নাগরপুর থানায় একটি অভিযোগ দিতে এসেছি ।

আরো খবর »