নীলফামারীতে ইউএনও’র মোবাইল নম্বর ক্লোন

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

নীলফামারী থেকে আব্দুর রাজ্জাক: নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রেজাউল করিমের সরকারী ও ব্যাক্তিগত সেলফোন নম্বর ক্লোন করে সেই নম্বর দিয়ে বেশী করে চাল বরাদ্দ দেয়ার নামে ইউপি চেয়ারম্যানদের প্রতারণার চেষ্টা করা হয়েছে। প্রতি ইউপি চেয়ারম্যানকে অতিরিক্ত ২০ মেট্রিকটন করে চালের ডিও লেটার দেয়া হবে জানিয়ে একটি বিকাশ নম্বর দিয়ে ২০ হাজার করে টাকা দাবী করা হয়।

এ ঘটনায় গতকাল সোমবার ১৪ আগষ্ট বিকালে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রেজাউল করিম ডিমলা থানায় একটি জিডি করেছে। ডিমলা উপজেলার তিস্তা নদীর বন্যা কবলিত পূর্বছাতনাই, খগাখড়িবাড়ি, টেপাখড়িবাড়ি. ঝুনাগাছ চাঁপানী ও খালিশাচাঁপানী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যানদের নিকট মোবাইলে কথা বলে ওই প্রতারক চক্র। ঝুনাগাছ চাঁপানী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান জানান, দুপুরে ও বেলা ৩টায় দুই দফায় তাকে মোবাইল করা হয় ডিমলা উপজেলার ইউএনও সরকারী ও ব্যাক্তিগত নম্বর দিয়ে। তাকে বলা হয় আমি ইউএনও বলছি, ০১৮৩৬-২৪৫৫১১ নম্বরে ২০ হাজার টাকা বিকাশ করুন।

আপনার ইউনিয়নের বন্যার্তদের জন্য ২০ মেট্রিকটন চাল অতিরিক্ত বরাদ্দ দেয়া হবে। ইউপি চেয়ারম্যান কন্ঠটি ইউএনও নয় বুঝতে পেরে তাৎক্ষনিকভাবে বিষয়টি ডিমলা ইউএনওকে অবগত করেন। পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান, খালিশাচাঁপানী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম শাহিন ও খগাখড়িবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম লিথন জানান তাদেরকেও দুই দফায় মোবাইলে একই কথা বলা হয়। তারা বুঝতে পেরে প্রতারক চক্রকে গালিগালাজ করতে থাকলে প্রতারকচক্র মোবাইল লাইন কেটে দেয়।

ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, ইউপি চেয়ারম্যানদের নিকট এমন অভিযোগ পেয়ে থানায় জিডি করেছি। তিনি বলেন আমার সরকারী ও নিজস্ব গ্রামীনফোনের মোবাইল নম্বর দুইটি চালু আছে। যা দিয়ে আমি বিভিন্নজনের মোবাইল রিসিভ করছি ও কথা বলছি। সেখানে কিভাবে প্রতারক চক্র আমার সরকারী ও নিজস্ব নম্বর ব্যবহার করে ইউপি চেয়ারম্যানদের প্রতারনার অপচেষ্টা করেছে তা বুঝে উঠতে পারছিনা।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »