‘বন্যা দুর্গতদের জন্য সরকারের ত্রাণ তৎপরতা নেই’

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: বন্যা দুর্গতদের জন্য ‘সরকারের ত্রাণ তৎপরতা নেই’ বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।

বুধবার দুপুরে এক দোয়া মাহফিলপূর্ব সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই অভিযোগ করেন।

নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের উদ্যোগে এই দোয়া মাহফিল হয়। গত ৮ অাগস্ট লন্ডনের মুরফিল্ড আই হাসপাতালে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ডান চোখে অস্ত্রোপচারের পর তার আরোগ্য কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

রিজভী বলেন, সারাদেশের বন্যার্তদের জন্য সরকারের ত্রাণ তৎপরতা নেই এবং উপদ্রুত এলাকা থেকে মানুষকে যে উঁচু জায়গায় সরিয়ে নিতে হবে সেটাও কোথাও দৃশ্যমান নেই। এ ব্যাপারে লন্ডনে চিকিৎসাধীন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জরুরি বার্তা তুলে ধরে দলের নেতা-কর্মীদের উপদ্রুত এলাকায় ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে দ্রুত যাওয়ার আহবানও জানান রিজভী।

তিনি বলেন, অসংখ্য মানুষ এখনো পানিবন্দী এবং তারা যে রান্না করে খাবে, চাল-ডাল দিলেও কোনো কিছু করতে পারছে না। কোথায় রান্না করে নিয়ে যাবে সেই উপায় নেই। রেল লাইন ভেসে গেছে, রাস্তা-ঘাট ভেসে গেছে। দেশের গুদামে চাল নেই, গম নেই। মানুষের কাছে ত্রাল পৌঁছাচ্ছে না। অথচ তারা (সরকার) মুখে তুবড়ি ছোটাচ্ছে।

শোকদিবসে ক্ষমতাসীনদের ‘উৎসব’ উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ১৫ আগস্ট শোক দিবসে ক্ষমতাসীনরা ‘চাঁদাবাজি’র মাধ্যমে উৎসব পালন করেছেন। যে মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড হয়েছে- ৭৫ এর ১৫ আগস্ট, সেটার জন্য আমরাও দুঃখ প্রকাশ করি, বলি। কিন্তু শোকাবহ ঘটনা গোটা জাতির ওপর শোকের যে অনুভূতি তো আপনারাই নষ্ট করে দিচ্ছেন। পানের দোকানদারের কাছ থেকে ৫শ’ টাকা, সাইকেলের মিস্ত্রির কাছ থেকে ৩শ’ টাকা, মুদির দোকানদারের কাছ থেকে ১ হাজার টাকা- এভাবে পকেট কাটতে কাটতে গোটা জাতিকে কাঁদাচ্ছেন। এভাবে জোর করে সহানুভূতি আদায় করা যায় না।

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ক্ষমতাসীনরা আজকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ে ছুটোছুটি করছেন। আমরা বুঝতে পারছি তারা এমনভাবে চেষ্টা করছেন, যখন এই ভয়ঙ্কর দুঃশাসনের মধ্যে প্রধান বিচারপতি মানুষের চিন্তা-চেতনা-আশা-আকাংখায় ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় দিয়েছেন, তার মধ্য দিয়ে গোটা জাতির মধ্যে যে আশাবাদ ফুটে উঠেছে।

আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এবিএম খায়রুল হকের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, এত বড় অনুগত, এত বড় আত্মা বিক্রিকারী মানুষ যিনি সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির পদ অলংকৃত করেছিলেন। এই ধরনের লোকরা সমাজে থাকলে ন্যায় বিচার থাকবে না, মানুষের নাগরিক অধিকার থাকবে না, মানুষের চলাচল নির্বিঘ্ন হবে না, নারী নির্যাতন হতেই থাকবে। কারণ ওরা তো শেখ হাসিনার কথায় রায় দেন, ওরা বিবেক দিয়ে রায় দেন না।

খায়রুল হকের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি আরও বলেন, চাকরির লোভে, টাকার লোভে, নিজের চিকিৎসার লোভে, নিজের সহায়-সম্পত্তির লোভে তিনি শেখ হাসিনার কাছে আত্মা বিক্রি করে দিয়েছেন।

তিনি বলেন, দেশে এখন তিনটি দুযোর্গ চলছে। একটি শেখ হাসিনা, দ্বিতীয়টি বিচারপতি খায়রুল হক এবং তৃতীয়টি বন্যার প্রাকৃতিক দুর্যোগ।

সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক হেলেন জেরিন খানের পরিচালনায় দোয়া মাহফিলপূর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, কেন্দ্রীয় নেত্রী পেয়ারা মোস্তফা, শামসুন্নাহার ভুঁইয়া প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এই দোয়া মাহফিলে মহিলা দলের সিনিয়র নেত্রী নুরজাহান ইয়াসমীন, ইয়াসমীন আরা হক, ফয়েজুন্নেসাসহ শতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »