জয়পুরহাটে ভয়াবহ হচ্ছে বন্যা, একজনের মৃত্যু

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি,স্বাধীনবাংলা২৪.কম

জয়পুরহাট: জয়পুরহাটে ক্রমে ভয়াবহ হয়ে উঠছে বন্যা পরিস্থিত। তুলসীগঙ্গা নদীর পানি বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের একাধিক স্থানে দেখা দিয়েছে ফাটল।

এদিকে, বন্যার পানিতে ঘরের দেয়াল ধসে জেলার পাঁচবিবি উপজেলায় এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

টানা বর্ষণ ও উজানের ঢলে জয়পুরহাটের সবকটি নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় প্রতিনিয়ত নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।

জয়পুরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী নজমুল হক জানান, তুলসীগঙ্গা নদীর পানি বিপৎসীমার ৬০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তলিয়ে গেছে রোপা আমনসহ বিভিন্ন ফসলি জমি ও বাড়িঘর।

হঠাৎ পানি বেড়ে যাওয়ায় সদর উপজেলার জয়পুরহাট-বগুড়া আঞ্চলিক মহাসড়কের বানিয়াপাড়া, কোমরগ্রাম, হিচমিসহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় চার কিলোমিটার এলাকা ডুবে গেছে। দুর্ঘটনার আশঙ্কায় বর্তমানে ওই সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইব্রাহিম খলিলুল্লাহ জানান, বিভিন্ন সড়ক ও বিদ্যালয় মাঠে পানি ওঠায় বুধবার জেলার ১১টি মাধ্যমিক ও চারটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে, পাঁচবিবি উপজেলার কুসুম্বা ইউনিয়ন বিদ্ধি গ্রামে বন্যার পানিতে মাটির দেয়াল ধসে পড়ে বিলাস রানী (৬০) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

কুসুম্বা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মুক্তার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »