শাহানা পারভিন রেখার কবিতা আধারের বিনোদিনী

Feature Image

আকাশের আঙ্গিনায় নায়ভাগী নক্ষত্রে-
আমি স্বপ্নের ভেতর স্বপ্ন হয়ে জন্মায়!
সবচেয়ে আলোকিত গোলাপগন্ধি স্বপ্নবেশে।
কাগুজে নৌকা হয়ে ভাসি,তোমার আকাশে ধ্রুবতারার খোঁজে।
হাস্নাহেনার সুরভিত রাতের মর্মমূলে মায়াবী-
সুস্বাদু অন্ধকারে!

তোমার বিবেচনার আশা নিয়ে বসে আছি—
অনন্তকাল ধরে,,,,,
অমরত্বের বীজ বপন করে নিরক্ষ রেখার সাদা- পৃষ্ঠে;
মেঘবতী আকাশ,চন্দ্রতিথির প্রথম রাত্রি,
আঁখি আমার পদ্মবিলের ভাসা পদ্ম!
দেখা দাও হে প্রভু!আমি যে বসে আছি —
জ্যোৎস্নার বালু চরে।
ক্ষীরের নদী,প্রজাপতির বুটিদার রঙের চাদরে;
ক্ষুধিত স্মৃতিরা বড্ড পাষান যে!

আমি অলৌকিক অলক্ষ্যে হেঁটে যায়….
হৃদয় গহীনের অনন্ত গহীনে।
অবশিষ্ট পরে আছি আমি,চলে গেছে
একশত এক খেয়া পাড়ের তরী;
আধার জলে ডুবে আমি শুধু লাল নীল- সাদাকালো মহাকালের গভীর তন্দ্রা দেখিলাম।
আমি তো শুধু তোমায় দেখিতে চেয়েছি প্রভু!

যাযাবর হয়ে হেঁটে চলেছি…….
প্রিয়তম,তোমার জন্যে বুকের পাঁজরের দামে-
কেনা প্রেম,
অগ্নিগিরির চিরবেদনার আগুন ডালায় অজ্ঞাত- প্রায়শ্চিত্ত।
বিস্মরণে প্রসূতি শরমে অনুজ্জ্বল বেদনাকে ঘিরে- সাঁতরে মরি!
সকলেই ফিরে যায় সহিষ্ণু ছদ্মবেসে,
আমি শুধু রয়ে যায় প্রসন্ন অনুভবে…..
তোমার গাঢ় উপেক্ষিত প্রতিশ্রুতির আশায়।
তোমার বেদবাক্য “না” জানি কখনো “”হ্যাঁ””হবে না!
তবু আলোময় আঁধারে বিনোদিনী হয়ে রয়,
মহাকালের অতল সাগরে ডুবন্ত বিনোদিনীকে-
পথ দেখাও হে প্রভু!!!

আরো খবর »