ঈদে যাত্রী পরিবহন সৈয়দপুর রেল কারখানায় ৬৫ কোচ মেরামত

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি,স্বাধীনবাংলা২৪.কম

নীলফামারী থেকে আব্দুর রাজ্জাক: ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ঘরমুখী যাত্রীদের পরিবহনের ধারণ ক্ষমতা বাড়াতে পশ্চিম রেলওয়ে আন্তঃনগর ট্রেনের কোচ সংখ্যা বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে। লক্ষ্য অর্জনে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় অতিরিক্ত কোচ মেরামতের কাজ চলছে জোরেশোরে। নানা সীমাবদ্ধতা ও জনবল সংকট সত্বেও এবার ৬৫টি কোচ মেরামত করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বুধবার পর্যন্ত ২৫টি কোচ রেলওয়ের ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঈদের আগে ও পরে এসব কোচ বিভিন্ন গন্তব্যে চলাচলাকারী আন্তঃনগর ট্রেন বহরে জুড়ে দেয়া হবে। এছাড়াও পরিচালনা করা হবে দুটি স্পেশাল ট্রেন। ট্রেন দুটি চলবে ঢাকা-পার্বতীপুর ও ঢাকা-খুলনা রুটে। অতিরিক্ত এসব কোচ চলতি মাসের ৩১ আগস্টের মধ্যে হস্তান্তর শেষ হবে। কারখানা সূত্রে জানা যায়, মধ্য জুলাই থেকে পুরাতন ৬৫টি কোচের মেরামত শুরু হয় কারখানায়। যথাসময়ে কোচগুলো সরবরাহের উদ্দেশ্যে কারখানায় প্রতিদিন ৯ ঘন্টা বিরতিহীনভাবে কাজ চলছে। কারখানার মঞ্জুরী জনবলের মাত্র ৩৮ ভাগ জনবল ও বিদ্যমান পুরনো মেশিনপত্র দিয়ে অচল কোচকে সুসজ্জিত করে সচল করা হচ্ছে। এ জন্য কারখানার ৪টি সপে (উপ-কারখানা) চলছে মেরামতের কর্মযজ্ঞ। এ কাজ চলছে ক্যারেজ, বগি, জেনারেল ওভার হোলিং ও ক্যারেজ হেভি রিপিয়ার সপে।

নির্ধারিত সময়ে মেরামত কাজ সম্পন্ন করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারখানার ২৯টি সপের শ্রমিক-কারিগর ও প্রকৌশলীরা। রেলওয়ের ট্রাফিক বিভাগের পার্বতীপুর, লালমনিরহাট, ঈশ্বরদী, রাজশাহী ও খুলনা রেলওয়ে ডিপোয় রাখা মেরামতযোগ্য পুরাতন কোচ সংগ্রহ করে সচল করা হচ্ছে কারখানায়। কোচ মেরামত করতে রেলওয়ে সরঞ্জাম বিভাগের মজুদ মালামাল ও রেল কারখানায় তৈরী করা নিজস্ব সরঞ্জাম ব্যবহার করা হচ্ছে। এ কাজ সম্পন্ন করতে দৈনিক কর্মঘন্টার সঙ্গে অতিরিক্ত এক ঘন্টা শ্রম বেশি দিচ্ছেন শ্রমিক কারিগররা। অতিরিক্ত এ কাজের জন্য শ্রমিক-কারিগরদের দেয়া হচ্ছে ওভারটাইম। মোট ৬৫ কোচের মধ্যে ৪০টি ব্রডগেজ ও ২৫টি রয়েছে মিটারগেজ রেলপথের কোচ। ইতোমধ্যে মেরামত সম্পন্ন ২০টি কোচ সরবরাহ করা হয়েছে। এর বাদবাকি কোচ পর্যায়ক্রমে ট্রাফিক বিভাগে সরবরাহ করা হবে।

সূত্র মতে, ঈদ উপলক্ষে কর্মজীবী মানুষের বাড়ি ফিরতে চরম বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। সড়কপথে দুর্ঘটনা, যানজট ও বাড়তি ভাড়ার কারণে ট্রেনমুখী হয়ে উঠেছেন ঘরমুখো মানুষ। যাত্রীদের মাঝে ট্রেনযাত্রার চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় ট্রেনে আসন সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। তাই রেলওয়ের যাত্রী চাপ সামলাতে অতিরিক্ত রেলকোচ মেরামত করা হচ্ছে। যাতে ঘরমুখী যাত্রীরা স্বাচ্ছন্দে গন্তব্যে যেতে পারেন। এজন্য পশ্চিম রেলওয়ের প্রতিটি আন্তঃনগর ট্রেনে বৃদ্ধি করা হবে কোচের সংখ্যা। এছাড়াও ঈদের আগে ও পরে পরিচালনা করা হবে দুটি স্পেশাল ট্রেন। ফলে ঈদ যাত্রায় পশ্চিম রেলওয়ের ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত ৪০ হাজার যাত্রী রেলপথে যাতায়াতের সুবিধা পাবেন।

এ ব্যাপারে রেলওয়ে শ্রমিকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোখছেদুল মোমিন জানান, গণপরিবহন হিসাবে রেলওয়ের গৌরব ফিরিয়ে আনতে সর্বোচ্চ সংখ্যক কোচ মেরামতের কাজ করছেন কারখানার শ্রমিক কর্মচারীরা। তবে কাঁচামালের সীমাবদ্ধতা ও জনবল সংকট থাকলেও কাজ চলছে জোরেশোরে। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ওয়ার্কস ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম জানান, ঈদের সময়ে রেলওয়ের যাত্রী ধারণ ক্ষমতা বাড়াতে অতিরিক্ত কোচ মেরামত করা হচ্ছে। আসন্ন ঈদে পশ্চিম রেলওয়ের প্রতিটি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ও স্পেশাল ট্রেন বহরে ৬৫টি কোচ যুক্ত করা হবে। এতে রেলওয়েতে ৪০ হাজারেরও বেশি যাত্রী গন্তব্যে যেতে পারবেন। সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে ট্রেন যাত্রার চাহিদা তৈরী হওয়ায় পশ্চিম রেলওয়ের পক্ষ থেকে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় প্রতি বছর দুই ঈদে অতিরিক্ত রেল কোচ মেরামত করা হয়।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »